[১]মানিক বন্দ্যোপাধ্যায় নিজেকে বলতেন ‘কলম-পেষা মজুর’

আমাদের নতুন সময় : 03/12/2020

মাসুদ হাসান: [২] শ্রমজীবী মানুষের সংগ্রাম, মধ্যবিত্ত সমাজের কৃত্রিমতা, নিয়তিবাদ ইত্যাদি বিষয়কে লেখার মধ্যে তুলে এনে বাংলা সাহিত্যে অমর হয়ে আছেন কথাসাহিত্যিক মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি ১৯০৮ সালের ১৯ মে বিহারের সাঁওতাল পরগনায় জন্মগ্রহণ করেন। প্রকৃত নাম প্রবোধকুমার বন্দ্যোপাধ্যায়, মানিক তার ডাক নাম।
[৩] বাবার বদলির চাকরিসূত্রে তার শৈশব, কৈশোর ও ছাত্রজীবন কেটেছে বাংলাদেশ ও ভারতের বিভিন্ন অঞ্চলে। প্রবেশিকা ও আইএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হবার পর মানিক বন্দ্যোপাধ্যায় গণিত বিষয়ে অনার্স করতে কলকাতা প্রেসিডেন্সি কলেজে ভর্তি হন। এখানে পড়াশোনাকালে বন্ধুদের সঙ্গে বাজি ধরে তিনি ‘অতসী মামী’ গল্পটি লেখেন। গল্পটি বিখ্যাত ‘বিচিত্রা’ পত্রিকায় ছাপা হলে পাঠকনন্দিত হয় এবং তিনি সাহিত্যাঙ্গনে পরিচিত হয়ে ওঠেন। [৪] সারা পৃথিবী জুড়ে যখন মানবিক বিপর্যয়ের এক চরম সংকটময় মুহূর্ত চলছে। কমিউনিজমের দিকে ঝুঁকে যাওয়ায় তার লেখায় একসময় এর ছাপ পড়ে এবং মার্ক্সীয় শ্রেণিসংগ্রাম তত্ত্ব দ্বারা গভীরভাবে প্রভাবিত হয় মানিক বন্দ্যোপাধ্যায় এর বই সমগ্র। ফ্রয়েডীয় মনোসমীক্ষণেরও প্রভাব লক্ষ্য করা যায় মানিক বন্দ্যোপাধ্যায় রচনাসমগ্র-তে। [৫] তার বই সমূহের মধ্যে ‘পদ্মানদীর মাঝি’, ‘দিবারাত্রির কাব্য’, ‘পুতুলনাচের ইতিকথা’, ‘শহরতলি’, ‘চতুষ্কোণ’, ‘শহরবাসের ইতিকথা’ ইত্যাদি বিখ্যাত উপন্যাস, এবং ‘আত্মহত্যার অধিকার’, ‘হারানের নাতজামাই’, ‘বৌ’, ‘প্রাগৈতিহাসিক’, ‘সমুদ্রের স্বাদ’, ‘আজ কাল পরশুর গল্প’ ইত্যাদি গল্পগ্রন্থ বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। অসামান্য এই কথাসাহিত্যিক মাত্র ৪৮ বছর বয়সে ১৯৫৬ সালের ৩ ডিসেম্বর মৃত্যুবরণ করেন। সম্পাদনা : সমর চক্রবর্তী




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]