• প্রচ্ছদ » শেষ পাতা » [১]চাঁদপুর থেকে শরিয়তপুর নৌ-রুটের পরিবর্তে সেতু বা টানেল তৈরির পরিকল্পনা করছেন নদীর দুই পাড়ের মন্ত্রী ও উপমন্ত্রী


[১]চাঁদপুর থেকে শরিয়তপুর নৌ-রুটের পরিবর্তে সেতু বা টানেল তৈরির পরিকল্পনা করছেন নদীর দুই পাড়ের মন্ত্রী ও উপমন্ত্রী

আমাদের নতুন সময় : 12/01/2021

আনিস তপন : [২] এই দুই পাড়ের মধ্যে দূরত্ব মাত্র ১০ কিলোমিটার। রেলপথসহ পরিকল্পনাটি বাস্তবায়িত হলে সময় ও অর্থ সাশ্রয়ের পাশাপাশি বদলে দিতে পারে দেশের অর্থনীতি।[৩] পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী এনামুল হক শামীম বলেন, চাঁদপুর-৪ আসনের এমপি ও শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনির সঙ্গে এ বিষয়ে আমার কথা হয়েছে। তারাও একমত হয়েছেন। জনসেবার পাশাপাশি দেশের অর্থনীতির পক্ষে এমন একটি কাজ করতে চাই যা হবে যুগান্তকারী। [৪] তিনি বলেন, এই সরকারের শেষদিকে হলেও মেঘনা সেতু অথবা টানেলের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করতে পারবো।[৫] সেতু বিভাগ সূত্র বলছে, মেঘনা নদীর এক প্রান্তে শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ উপজেলার আলুবাজার ফেরিঘাট আর অন্য প্রান্তে চাঁদপুরের হরিণা ফেরিঘাট পর্যন্ত সেতু বা টানেলের দৈর্ঘ্য ১০ কিলোমিটার। তবে এখানে মূল সেতুর দৈর্ঘ্য মাত্র ২ দশমিক ৬৫ কিলোমিটার। বাকি অংশ চর এলাকা। এখানে নদীর গভীরতা প্রায় ৬৫ মিটার। [৬] এখানে সেতু বা টানেল নির্মাণ হলে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের খুলনা ও বরিশাল বিভাগের ২২ জেলা, সিলেটের চার জেলা এবং চট্টগ্রাম বিভাগের ১১ জেলার সরাসরি সড়ক যোগাযোগ সম্ভব হবে। পাশাপাশি চট্টগ্রাম, পায়রা ও মোংলা সমুদ্রবন্দরে পণ্য সড়কপথে পরিবহনের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। সম্পাদনা: রায়হান রাজীব,সমর চক্রবর্তী




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]