• প্রচ্ছদ » » আমাদের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে গভীর আগ্রহ নিয়েছিলেন এবং সেই দিকে গবেষণা চালিয়েছিলেন


আমাদের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে গভীর আগ্রহ নিয়েছিলেন এবং সেই দিকে গবেষণা চালিয়েছিলেন

আমাদের নতুন সময় : 13/01/2021

ফয়জুল লতিফ চৌধুরী : মিজানুর রহমান খান আর নেই। তিনি নিছক প্রথম আলোর যুগ্ম সম্পাদক ছিলেন বললেও কমতি থাকবে। তার মৃত্যুতে দেশ একজন জুরিস্টকে হারিয়েছে যিনি নিজ সামর্থ্য ও ত্রæটি বিচ্যুতিতে প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছেন। তিনি পিছনে ফেলে গেছেন, কিথ কিন ছাড়াও দেশ-বিদেশের লক্ষ লক্ষ পাঠক, যারা তার কলাম পড়ার জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করেছেন। শুধু কলামই নয়, তিনি সঠিক প্রশ্ন নিয়ে সাক্ষাৎকার নিতে দৃষ্টান্তমূলক ছিলেন, কখনোই সন্তুষ্টির বিষয়ে কনসেডিং করেননি। মাঝে মাঝে তিনি ‘এক্সক্লুসিভ’ নিয়ে সাহসী শিরোনামে প্রথম পৃষ্ঠায় আঘাত করেন। তিনি যা লিখেছেন তা ছিলো উদ্দীপক এবং চোখ খোলার মতো, যুক্তিতে দীপ্তিমান, প্রমাণসহ পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে জড়িত। তিনি আমাদের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে গভীর আগ্রহ নিয়েছিলেন এবং সেই দিকে সেমিনাল গবেষণা চালিয়েছিলেন। বাংলাদেশে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন আন্তর্জাতিক শক্তির ভ‚মিকা নিয়ে অতি সাধারণ গবেষণার ফল ছিলো তার বই ‘১৯৭১-আমেরিকার গোপন গোপন দলিল’। যেহেতু সবাই জানে, তিনি আইনি বিষয়ে দারুণ আগ্রহ নিয়েছিলেন এবং দুই দশকেরও কম সময়ে, সাংবিধানিক আইনের বিশেষ দক্ষতার সঙ্গে নিজেকে একজন অসামান্য আইনি বিশেষজ্ঞ হিসেবে আলাদা করে ফেলেছিলেন, সবার আগে উল্লেখযোগ্য এবং তাও কোনো আইনি ডিগ্রি ছাড়াই ধঃ ধষষ ড়ৎ ধঢ়ঢ়ৎবহঃরপংযরঢ়. (প্রশিক্ষণের মাধ্যমে তিনি একজন হিসাবরক্ষক ছিলেন)। সাংবাদিক হিসেবে অবদানের চেয়ে জাতির প্রতি তার অবদান অনেক বেশি। তিনি নিজেকে জাতির জন্য শিক্ষাবিদ হিসেবে গণ্য করেছেন। সে আমাদের ছেড়ে চলে গেছে এমন এক সময় যখন আমাদের তাকে সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন ছিলো। আমি বিশ্বাস করি, তিনি একজন জুরিস্ট হিসেবে দীর্ঘ ফেম করা হবে যিনি জাতির জন্য আইনগত শিক্ষাবিদ হিসেবে পরিণত হয়েছেন, আমাদের মনস্তাত্বে আইনানুগ বোধ অমান্য করে।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]