• প্রচ্ছদ » » নিজের জানা বিষয় মিজানুর রহমান খান এতোটা উচ্চস্বরে প্রকাশ করতেন, যা তার চুপচাপ স্বভাবের ঠিক উল্টো ছিলো


নিজের জানা বিষয় মিজানুর রহমান খান এতোটা উচ্চস্বরে প্রকাশ করতেন, যা তার চুপচাপ স্বভাবের ঠিক উল্টো ছিলো

আমাদের নতুন সময় : 13/01/2021

গোলাম মাওলানা রনি : সাংবাদিক মিজানুর রহমান খান এবং আমি একসময় খবর গ্রæপে একসঙ্গে কাজ করেছি। পরবর্তী সময়ে আমরা একসঙ্গে অনেকগুলো সেমিনার এবং টকশোতে অংশগ্রহণ করেছি। তার সঙ্গে আমার কোনোদিন বিতর্ক হতো না। বরং আমরা উভয়ে একমত হয়ে যা বলতাম তা অনেকের ভাল লাগত। তিনি মূলত আইন বিষয়ে লিখতেন, বলতেন, পরামর্শ দিতেন এবং কর্ম জীবনে সাংবাদিকতা করতেন। অন্যদিকে, আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আইনে এলএলএম ডিগ্রি নেয়ার পর প্রথমে সাংবাদিকতা, তারপর বহুজাতিক কোম্পানিতে চাকরি শেষে নিজের ব্যবসা শুরু করি। পরবর্তী সময়ে রাজনীতি এবং অন্যান্য কর্ম। ফলে জীবনের অনেক বিষয়ে আমাদের জানাশোনা এবং অভিজ্ঞতার মিল থাকায় মতের অমিল হতোনা ।
মিজানুর রাহমান খান গুণী মানুষ ছিলেন। ছিলেন স্বল্পভাষী এবং চিন্তাশীল প্রকৃতির। তিনি যা জানতেন কেবল সেইসব বিষয়ে বলতেন এবং লিখতেন। নিজের জানা বিষয় তিনি এতোটা উচ্চস্বরে প্রকাশ করতেন যা তার চুপচাপ স্বভাবের ঠিক উল্টো ছিলো এবং তার প্রতিপক্ষের জন্য ছিলো বজ্রপাতের মতো। আর তিনি হাসতেনও খুব উচ্চস্বরে, প্রাণখুলে এবং দরাজ দিলে । তার জীবনে অনেক খারাপ সময় গিয়েছে কিন্তু কোনোদিন তাঁকে আফসোস করতে দেখিনি। জীবন সম্পর্কে তার যেমন কোনো অভিযোগ ছিলো না তদ্রæপ, সফলতার কারনে উচ্ছ¡সিত হননি কোনকালে। করোনার তাÐবে মিজানুর রহমান খান ইহলোক ত্যাগ করেছেন। কিন্তু তার কর্ম এবং জীবনাদর্শ আমাদের মাঝে রেখে গিয়েছেন যা নিশ্চয়ই অনেককে অনুপ্রাণিত করবে। আমি তার বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করি এবং পরলোকে তিনি যেন মহান আল্লাহর অবারিত করুণা এবং ক্ষমার আশ্রয় লাভ করেন এই দোয়া করি। আমীন




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]