• প্রচ্ছদ » » প্রথম আলো কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন অ্যাপ নিয়ে অপপ্রচারের পর ইউনিসেফের বরাত দিয়ে যে তথ্য বিকৃতি করেছে তাকে বুদ্ধিবৃত্তিক অসততা না বলে অপরাধ বলা উচিত


প্রথম আলো কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন অ্যাপ নিয়ে অপপ্রচারের পর ইউনিসেফের বরাত দিয়ে যে তথ্য বিকৃতি করেছে তাকে বুদ্ধিবৃত্তিক অসততা না বলে অপরাধ বলা উচিত

আমাদের নতুন সময় : 16/01/2021

আবদুল্লাহ হারুন জুয়েল : প্রথম আলো কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন অ্যাপ নিয়ে অপপ্রচারের পর ইউনিসেফের বরাত দিয়ে যে তথ্য বিকৃতি করেছে তাকে বুদ্ধিবৃত্তিক অসততা না বলে অপরাধ বলা উচিত। ‘একই টিকার দাম ভিন্ন ভিন্ন’ শিরোনামে প্রকাশিত প্রতিবেদনে তথ্যগুলো এমনভাবে পরিবেশন করা হয়েছে যেন সাধারণ পাঠকদের কাছে এটি দুর্নীতি হিসেবে প্রতীয়মান হয়। প্রথম আলো যেভাবে নেতিবাচক ধারণা দিতে রিপোর্ট করেছে তার কয়েকটি উল্লেখ করছি। [১] প্রতিবেদনে ইউনিসেফের সূত্র উল্লেখ করে যে মূল্য দেখানো হয়েছে সেখানে এস্ট্রোজেনেকা ও সেরাম ইনস্টিটিউটকে একই প্রতিষ্ঠান হিসেবে ধরা হয়েছে, যা পৃথক দুটি প্রতিষ্ঠান। [২] ফিলিপাইনে টিকার মূল্য ৫ ডলার, কিন্তু লেখা হয়েছে ২.৫ ডলার। [৩] ইউরোপিয়ান কমিশন এস্ট্রোজেনেকার সঙ্গে উৎপাদন করার জন্য অগ্রিম ক্রয় (এডভান্স পারচেজ) চুক্তি করেছে ৪০০ মিলিয়ন ডোজের জন্য। ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালও হয়েছে। [৪] ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল করে এস্ট্রোজেনেকার সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্র চুক্তি করেছে ৩০০ মিলিয়ন ডোজের জন্য ৪ ডলারে। [৫] বাংলাদেশ ভ্যাকসিন ক্রয় করছে সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে বাইল্যাটারাল এগ্রিমেন্টের মাধ্যমে। প্রাইভেট এগ্রিমেন্টে সেরাম ইনস্টিটিউটের টিকার মূল্য ৮ থেকে ১৩ ডলার। [৬] বাংলাদেশের ক্রয়ের সঙ্গে ওয়ার্ল্ড ব্যাংক এবং এডিবি যুক্ত রয়েছে। ইউনিসেফের তথ্যগুলো চ‚ড়ান্ত মূল্য নয়, বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত খবর থেকে পাওয়া মূল্য। প্রথম আলো কর্তৃপক্ষের উচিত প্রতিবেদকদের জবাবদিহিতা নিশ্চিত করা। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]