• প্রচ্ছদ » » যতোদিন শিক্ষক-ছাত্রকে রাজনীতির বেড়াজালে রাখা হবে, ততোদিন শিক্ষা ও গবেষণা অবহেলিতই থাকবে : অধ্যাপক কামরুল হাসান মামুন


যতোদিন শিক্ষক-ছাত্রকে রাজনীতির বেড়াজালে রাখা হবে, ততোদিন শিক্ষা ও গবেষণা অবহেলিতই থাকবে : অধ্যাপক কামরুল হাসান মামুন

আমাদের নতুন সময় : 17/01/2021

তানিমা শিউলি : [৩] ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের এই শিক্ষক এক ফেসবুক পোস্টে লেখেন, রিপ্রোডাক্টশন বা প্রজনন হলো সকল জীবের একটি বেসিক ফিচার। প্রজননের মাধ্যমে সন্তান জন্ম দেওয়া হলো ৎবষধু দৌড়ের মতো করে কাঠিটা সন্তানের হাতে দিয়ে অমরত্ব লাভ করা। সন্তানের মাঝে নিজে বেঁচে থাকা। [৪] জ্ঞান সৃষ্টিও সন্তান জন্ম দানের মতো। একেকটি গবেষণা আর্টিকেলের জন্ম দিতেও প্রসব বেদনা আছে। সন্তান জন্মে যদি কেবল বেদনাই থাকতো তাহলে পৃথিবীতে কোনো মা দ্বিতীয় সন্তান নিতো না। তেমনি গবেষণাপত্র প্রকাশেও আনন্দ আছে। একদিন গবেষক থাকবে না কিন্তু গবেষণাপত্রটি থাকবে। গ্যালিলিও, নিউটন, আইনস্টাইন, হকিংÑ তারা এভাবেই অমর হয়ে থেকে যাবে। আজ থেকে ৫০০, ১০০০ কিংবা ৫০০০ বছর পরেও মানুষ তাদের গুণগান গাইবে। প্রজননের মাধ্যমে সন্তান প্রসব আর গবেষণার মাধ্যমে গবেষণা পত্র প্রকাশ দুটোই আনন্দের। আবার সব সন্তান যেমন এক হয় না তেমনি সব গবেষণাও এক না। [৫] একটি পত্রিকায় একটি আর্টিকেলের শিরোনাম দেখলাম ‘গবেষণায় ‘উদাসীন’ শিক্ষক’! প্রশ্ন হলো এই দেশে কবে শিক্ষকরা গবেষণায় ‘উদাসীন’ ছিলো না। বাংলাদেশের বিশ^বিদ্যালয়ে কখনো গবেষণা তেমনভাবে ছিলোই না। অল্পস্বল্প যাও ছিল তা দিন যতো যাচ্ছে তাও কমে যাচ্ছে। যতোটুকুই বা হয় তা হয় গার্বেজ নাহয় চুরিচামারি আর ধান্দাবাজির গবেষণা।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]