• প্রচ্ছদ » » যাদুবীয় গল্প বাস্তবতার ফাঁদে


যাদুবীয় গল্প বাস্তবতার ফাঁদে

আমাদের নতুন সময় : 18/01/2021

আনোয়ার শাহাদাত : যারা আমাকে বিব্রত করতে চায় তারা আমার দুর্বলতা লয়ে ‘জিগায়’ যাতে করে আমি তেমন বোধ করে থাকি অর্থাৎ বিব্রত। যেহেতু তারা জানে আমি যাদুবীয় বাস্তবতা বা ম্যাজিক্যাল রিয়ালিজম জিনিসটা বুঝি না তাই তারা সেটাই আমাকে ‘জিগায়’। আমি তখন তাদের ‘ধুনফুন’ বোঝাবার চেষ্টা চরিত করি। ধুনফুন এর সম্ভাব্য মানে হলো গিয়ে এটা-সেটা বা হাবিজাবি জাতীয় কিছু একটা। এই করে আমি খানিকটা ভারে কেটে চলে যেতে চাই এবং আমার মতো করে যাদুবীয় গল্প বাস্তবতার ফাঁদে ফেলি। বলি পাকিস্তানের গল্প, ১৯৭০ এর নির্বাচনের ঠিক আগে, ইয়াহিয়া সরকার সকল নেতাদের রেডিও টেলিভিশনে বক্তব্য রাখবার সুযোগ দেয়, এটা চলে ২৮ অক্টোবর থেকে ১৯ নভেম্বর পর্যন্ত। পর্যায়ক্রমে চলে ১৪ দলের নেতাদের বক্তব্য। শুরু হয় প্রথম দিন মুজিবের বক্তব্য দিয়ে আর শেষ হয় সিন্দের ইউনাইটেড ফ্রন্টের জি.এম. সৈয়দ দিয়ে। অন্যান্যদের মধ্যে কাইয়ুম খান, ওয়ালি খান প্রমুখরাও বক্তব্য দেন। গল্পের এই পর্যন্ত এলে পরে তারা আমার ম্যাজিক্যাল গল্পের ভবিষ্যৎ সম্পর্কে সন্দিহান হয়ে পরে। এর ফলে আমার কিছুটা ভয় ধরে। সেই ভয় হতে কিছুটা হৃদ ও দেহ কম্পন শুর হয়। আমি তাদের অভয় দেই এই বলে যে ‘কাঁপাকাঁপির’ কী দেখলেন? তারা বলে এতে ম্যাজিক কোথায়? আমি তাদের আশ্বস্ত করে বলি, আছে এর ভেতরে যাদু লুকিয়ে আছে। এই মতোন বলি যে, পাকিস্তান প্রশাসন আসলে যার বক্তব্য মনে করেছে কিছু হয়নি তিনি হলেন মুজিব। তারা এও বলেছে যেহেতু তার আগে মুজিবের রেডিও বা টেলিভিশনে বক্তৃতা দেওয়ার অভিজ্ঞতা নেই। সেই জন্যই প্রধানত মুজিবের বক্তব্যখানি খারাপ হয়েছে। এরপর তারা, যারা আমাকে বিব্রত করতে এসেছেন তারা তখনো জানতে চায় ইহাতে ‘ম্যাজিক’ কই? আমি তখন খিস্তিখেউর করে বোঝাতে চাই যে সামনে আছে এবং আরও বলি যে পাকিস্তান যার বক্তৃতা সর্বাধিক পছন্দ করেছে ওই ১৪ জনের মধ্যে তিনি হলেন মাওলানা ভাসানী! এরপর তারা হৈহৈ করে ওঠেন এই বলে যে, আমার বলা এ গপ্পের কোথাও এতোটুকুন কোনো ম্যাজিক নেই। ততোক্ষণে আমার কম্পন আরও বেড়ে গেছে এবং সেই স্ট্যাটাস বজায় রেখে বলি যে নির্বাচনের জন্য যে বা যার বক্তৃতা সবচেয়ে ভাল হয়েছে বলে কর্তৃপক্ষ মনে করছেন তিনি কার্যত নির্বাচনই করেননি অর্থাৎ ভাসানী । তারা তখন এই সস্তা ম্যাজিক্যাল রিয়ালিজমের গল্পের বিরোধিতা করে বলে এটা একটা বাস্তবতা। আমি তখন বলি এইভাবেই এটা তখন একটা যাদুকরী বাস্তবতায় রূপ নিয়ে একধরনের ‘যাদুবাস্তবতা’ নির্মাণ করে যে…! চিয়ার্স! তারা তখন তা বিশ্বাস করেনা। আমি তখন এই মতো ভাব করি যে, তারা আসলে জানেনা ম্যাজিক্যাল রিয়ালিজম মালখানি কী! হেঃহেঃহেঃ। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]