• প্রচ্ছদ » » সাংবাদিক মোনাজাত উদ্দিনের জন্মদিন আজ, আশির দশকে মফস্বল সাংবাদিকতার পথিকৃৎ, চারণ সাংবাদিক হিসেবে জনপ্রিয়তা লাভ করেন তিনি


সাংবাদিক মোনাজাত উদ্দিনের জন্মদিন আজ, আশির দশকে মফস্বল সাংবাদিকতার পথিকৃৎ, চারণ সাংবাদিক হিসেবে জনপ্রিয়তা লাভ করেন তিনি

আমাদের নতুন সময় : 18/01/2021

আব্দুল্লাহ মামুন : মোনাজাত উদ্দিন ১৯৪৫ সালের ১৮ জানুয়ারি রংপুরের গঙ্গাচড়া উপজেলার মর্ণেয়া ইউনিয়নের এক গ্রামে জন্ম গ্রহণ করেন। গ্রামীণ সাংবাদিকতার পথিকৃৎ মোনাজাত উদ্দিন বাংলাদেশের সাংবাদিকতায় অনুসন্ধানী প্রতিবেদন তৈরিতে সংযোজন করেছিলেন ভিন্ন মাত্রা। দৈনিক সংবাদে পথ থেকে পথে ধারাবাহিক রিপোর্টের জন্য খ্যাতি লাভ করেন। ১৯৬৬ সালে তিনি দৈনিক আজাদ পত্রিকা দিয়ে সাংবাদিকতা শুরু করেন। এরপর নিজের প্রকাশনায় দৈনিক রংপুর প্রকাশিত হয়। এছাড়া পূর্বদেশ, সংবাদ (১৯৭৬) ২০ বছর কাজ করেন। ১৯৯৫ সালে তিনি সংবাদ ছেড়ে জনকন্ঠ পত্রিকায় যোগদান করেন। সংবাদ সংগ্রহের পাশাপাশি আলোকচিত্রও ধারণ করতেন। ফিচার এবং সংবাদের সাথে সংযোজিত তার তোলা ছবিগুলো অভ‚তপূর্ব। লেখক হিসেবেও সাংবাদিক মোনাজাতউদ্দিন ছিলেন অনন্য। তার রচিত গ্রন্থের মধ্যে উল্লেখযোগ্য ‘শাহ আলম ও মজিবরের কাহিনি’, ‘পথ থেকে পথে’, ‘কানসোনার মুখ ও সংবাদ নেপথ্যে’, ‘পায়রাবন্দ শেকড় সংবাদ’ প্রভৃতি। সাংবাদিক মোনাজাত উদ্দিন নাসিমা আক্তার ইতির সঙ্গে ১৯৭০ সালের ১৪ ডিসেম্বর বিয়ে করেন। এই দম্পতির দুই মেয়ে ও এক ছেলে। বড় কন্যা মাহফুজা মাহমুদ চৈতি ও ফেরদৌস সিঁথি পেশায় চিকিৎসক। তার ছেলে আবু ওবায়েদ জাফর সাদিক সুবর্ণ বুয়েটের শিক্ষার্থী ছিলেন, সে তৃতীয় বর্ষের ছাত্র থাকাবস্থায় ১৯৯৭ সালে আত্মহত্যা করে। সাংবাদিকতায় বিশেষ অবদানের জন্য মোনাজাত জহুর হোসেন স্বর্ণপদক, ফিলিপস পুরস্কার ও একুশে পদক (মরণোত্তর) অর্জন করেন। মোনাজাত উদ্দীন সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে ২৯ ডিসেম্বর ১৯৯৫ সালে যমুনা নদীতে ড্রেজিং পয়েন্টের ছবি তুলতে গিয়ে আকস্মিকভাবে পড়ে পানিতে ডুবে মারা যান।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]