• প্রচ্ছদ » প্রথম পাতা » [১]মানবাধিকারকর্মীদের মতে, নারীর নিরাপত্তা বিধানে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় থেকে প্রত্যন্ত অঞ্চল পর্যন্ত সার্বক্ষণিক পর্যবেক্ষণের ব্যবস্থা নিতে হবে


[১]মানবাধিকারকর্মীদের মতে, নারীর নিরাপত্তা বিধানে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় থেকে প্রত্যন্ত অঞ্চল পর্যন্ত সার্বক্ষণিক পর্যবেক্ষণের ব্যবস্থা নিতে হবে

আমাদের নতুন সময় : 19/01/2021

তানিমা শিউলি : [২] মানবাধিকারকর্মী খুশি কবির বলেন, নারী নির্যাতনের ঘটনাগুলো বারবার ঘটছে তার মূল কারণ হচ্ছে প্রশাসন দায়িত্ব নিচ্ছে না। কোর্টগুলো দায়িত্বহীনতার সঙ্গে আসামীদের জামিন দিয়ে দেয়। সবচেয়ে বড় কথা হলো, সমাজের মানুষ এই ধরনের ঘটনাগুলো এড়িয়ে চলতে চায়। সাক্ষী দিতে চায় না। ধর্ষণ মামলার অধিকাংশ রায় হয় না। কোনো না কোনোভাবে তারা ছাড় পেয়ে যায়। [৩] নারী নির্যাতনের ঘটনাগুলো ইন্টারনেটে দিয়ে দেওয়া হচ্ছে । সেক্ষেত্রে ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্ট আইনের আওতায় তাদেরকে আনা হয় না। প্রশাসনিক এবং বিচারিক কোনো পর্যায়েই বিষয়টি গুরুত¦ পাচ্ছে না। এক ধরনের বিদঘুটে সংস্কৃতি তৈরি হয়েছে, এখন নারী মানেই ধর্ষণযোগ্য। [৪] মানবাধিকার কর্মী অ্যাডভোকেট এলিনা খান বলেন, নোয়াখালীর হাতিয়া বা সুবর্ণচর এগুলো হচ্ছে ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা। যেখানে আমরা এধরনের ঘটনাগুলো ঘটতে দেখছি। এই জায়গাগুলোতে মেয়েদের নিরাপত্তা নিয়ে প্রশাসন থেকে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। যদি নেওয়া হতো তাহলে এরকম দৃশ্য বারবার দেখতে হতো না।
[৫] নারীদের নির্যাতনের দুই একটা ঘটনা ছাড়া আমরা বাকিগুলোর খবর রাখছি না। যারা এই ঘটনাগুলো ঘটাচ্ছে তাদের প্রশাসনের লোকেদের সঙ্গে আতাঁত রয়েছে। নারী নিরাপত্তার দিক দিয়ে বাংলাদেশ সর্বোচ্চ পিছিয়ে আছে বলে আমি মনে করি। প্রশাসনিক এবং আর্থ-সামাজিক দুই ক্ষেত্রেই নারীর নিরাপত্তা তৈরি করতে হবে। সম্পাদনা: রায়হান রাজীব




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]