• প্রচ্ছদ » » শহীদ আসাদের প্রয়াণ দিবস আজ, ১৯৬৯ সালের ৪ জানুয়ারি ছাত্রদের ১১ দফা ও বঙ্গবন্ধুর ৬ দফা দাবির সঙ্গে একাত্মতা পোষণ করেন ছাত্র সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, যাতে প্রধান ভ‚মিকা রাখেন শহীদ আসাদ


শহীদ আসাদের প্রয়াণ দিবস আজ, ১৯৬৯ সালের ৪ জানুয়ারি ছাত্রদের ১১ দফা ও বঙ্গবন্ধুর ৬ দফা দাবির সঙ্গে একাত্মতা পোষণ করেন ছাত্র সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, যাতে প্রধান ভ‚মিকা রাখেন শহীদ আসাদ

আমাদের নতুন সময় : 20/01/2021

মাসুদ হাসান : শহীদ আসাদ ১৯৪২ সালের ১০ জুন নরসিংদী জেলার শিবপুর উপজেলার ধানুয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। শিবপুর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১৯৬০ সালে মাধ্যমিক শিক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে উচ্চ শিক্ষার্থে জগন্নাথ কলেজ (বর্তমান জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়) ও এমসি কলেজে পড়াশোনা করেন। তিনি আসাদ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগে স্নাতকোত্তর শ্রেণির ছাত্র ছিলেন। ১৯৬৬ সালে বি.এ এবং ১৯৬৭ সালে এম.এ ডিগ্রী অর্জন করেন।
ঢাকা বিকশ^বিদ্যালয়ের শহীদুল্লাহ হল শাখার সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন তিনি। রাজনৈতিক কর্মকাÐে নিবেদিত প্রাণ আসাদুজ্জামান গরিব ও অসহায় ছাত্রদের শিক্ষার অধিকার বিষয়ে সর্বদাই সজাগ ছিলেন। ১৯৬৯ সালের ৪ জানুয়ারি ছাত্রদের ১১ দফা ও বঙ্গবন্ধুর ৬ দফা দাবির সঙ্গে একাত্মতা পোষণ করে ছাত্র সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, যাতে প্রধান ভ‚মিকা রাখেন শহীদ আসাদ। পূর্ব পরিকল্পনা অনুসারে ২০ জানুয়ারি, ১৯৬৯ সালে দুপুরে ছাত্রদের নিয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজের পাশের্^ চাঁন খাঁরপুল এলাকায় মিছিল নিয়ে অগ্রসর হচ্ছিলেন। পুলিশ তাদেরকে চাঁন খাঁরপুল ব্রীজে বাঁধা দেয় ও চলে যেতে বলে। কিন্তু বিক্ষোভকারী ছাত্ররা সেখানে প্রায় এক ঘণ্টা অবস্থান নেয় এবং আসাদ ও তার সহযোগীরা স্বৈরাচারী সরকারের বিরুদ্ধে ¯েøাগান দিতে থাকে। আসাদকে লক্ষ্য করে পুলিশ গুলিবর্ষণ করে। আসাদের রক্তমাখা শার্ট দেখে বাংলা সাহিত্যের আধুনিক কবি শামসুর রাহমান তার অমর কবিতা ‘আসাদের শার্ট’ লিখেন। জাতীয় সংসদ ভবনের ডান পাশে অবস্থিত আইয়ুব গেটের পরিবর্তে আসাদ রাখা হয়।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]