• প্রচ্ছদ » » আত্মার শান্তি কিংবা অশান্তি


আত্মার শান্তি কিংবা অশান্তি

আমাদের নতুন সময় : 21/01/2021

আহসান হাবিব : কেউ মৃত্যুবরণ করলে আমরা শোক জানিয়ে একটা কথা বলি- ‘তার আত্মা শান্তি পাক’। আত্মা! কী জিনিস এটা? বলা হয়Ñ এটা এমন এক অদৃশ্য শক্তি, যা ছাড়া মানুষ প্রাণ পায় না। এটা নাকি অমর। তাই মানুষ যখন মারা যায়, তখন এটা দেহ ছেড়ে বেরিয়ে যায়। কোথায় যায়? আমরা জানি না। এই আত্মা কি আবার অন্য কোনো মানুষের দেহে প্রবেশ করে? মনে হয় না, কারণ বলা হয় এই পৃথিবী যতোদিন টিকবে, এর মধ্যে যতো মানুষ জন্ম নেবে, তার আত্মা আগে থেকেই তৈরি করা আছে। সুতরাং বলা যায় মৃত মানুষ থেকে বেরিয়ে পড়া আত্মা কোথাও জমা থাকে। এখন একটা মানুষের দেহ থেকে বেরিয়ে গেলে কি তার শান্তি কিংবা অশান্তি ভোগ করার বিষয় থাকে?
আমরা জানি দেহ কষ্ট পায়, আত্মা যেহেতু অশরীরী, তার কষ্ট পাওয়ার কোন কারণ নেই, এর কাজ শুধু দেহে প্রাণ সঞ্চারণ করা। তবে শান্তি এবং অশান্তি যেহেতু একটা অনুভ‚তি, তাই হয়তো আমরা যে শান্তি বা অশান্তি অনুভব করি, তা আসলে অনুভব করে আত্মা। কিন্তু আত্মা কি দেহ ছাড়া এই অনুভ‚তি পাওয়ার ক্ষমতা রাখে? রাখে নিশ্চয়ই নইলে আমরা শান্তি কামনা করি কেন? একজন মানুষের জন্য একটিই আত্মা নির্ধারিত, আত্মা যেহেতু অমর, তাই মানুষের দেহ মরে গেলেও ওই নির্দিষ্ট মানুষ ঠিকই কষ্ট পেতে পারে বলে আমাদের বিশ্বাস। কিন্তু আত্মা বলে কি সত্যি কোনো জিনিস বা শক্তি আছে? এটা একটা ভাববাদি চিন্তা বা দর্শন, আত্মা যদি একটা চেতনা হয়, তাহলে এটা বাইরে থেকে দেহে ঢুকিয়ে দিয়ে তাতে প্রাণ সঞ্চার করা হয় এই বিশ্বাস যারা করে, তারা ভাববাদি অর্থাৎ বস্তু নয়, ভাবই সবকিছু, বস্তু তখনই তার গুণ প্রাপ্ত হয় যখন এর ভেতর ওই চেতনা বাইরে থেকে ঢুকিয়ে দেওয়া হয়। তাদের মতে ফুলের গন্ধ আসলে ফুলের ভেতর বাইরে থেকে ঢুকিয়ে দেওয়া একটা গুণ, ফুল না থাকলেও এটার অস্তিত্ব আছে, তবে তা অনুভব করে উঠতে পারি না যতোক্ষণ না আমরা ফুলে শুঁকে এর গন্ধ পাই। ঠিক এখান থেকেই বস্তুবাদী দর্শনের উৎপত্তি। তারা বলে বস্তু নেই, কোনো চেতনা নেই, যেমন ফুল নেই তো গন্ধ নেই। তাহলে আত্মার কী হবে? এই যে কোটি কোটি বছরের বিবর্তনের ফল হিসেবে প্রাণের সৃষ্টি, সেখানে কী করে অদৃশ্য আত্মা এলো? এটা এলো ধর্মের হাত ধরে। তারা এসেই ঘোষণা দিয়ে বসলো ঈশ^র নামক এক মহাশক্তিধর কেউ এই মহাবিশ্ব কয়েকদিনে সৃষ্টি করে বস্তুর মধ্য আত্মা নামক জিনিস ঢুকিয়ে তাদের মধ্যে প্রাণের সঞ্চার করে দিয়েছে। তাহলে সংগত প্রশ্ন- এতো বিলিয়ন বছর কেন লাগলো বস্তুর মধ্যে আত্মা প্রবেশের কাজে? তাই দেখা যাচ্ছে যে বস্তু ছাড়া যেহেতু কোনো চেতনার অস্তিত্ব নেই, সুতরাং আত্মা একটা বানানো জিনিস। বানানো জিনিসের শান্তি বা অশান্তি থাকা না থাকা স্রেফ কল্পনা। মানুষ মরে গেলে সে রূপান্তরিত হয় তার মধ্য থাকা বিভিন্ন উপাদানগত বস্তুতে, তাতে থাকে না কোনো প্রাণ, তাই তার জন্য শান্তি কামনা করা একটা ভুয়া সান্ত¡না মাত্র। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]