• প্রচ্ছদ » আমাদের বাংলাদেশ » [১]ভূমি ও গৃহহীনদের প্রধানমন্ত্রীর উপহার দেওয়া ঘর দেশের টেকসই উন্নয়নের একটি বড় কর্মসূচি [২]মুজিববর্ষে ৯ লাখ ঘর উপহার দেওয়ায় বঙ্গবন্ধুর আত্মা খুব শান্তি পাবে, বললেন ড. আতিউর রহমান


[১]ভূমি ও গৃহহীনদের প্রধানমন্ত্রীর উপহার দেওয়া ঘর দেশের টেকসই উন্নয়নের একটি বড় কর্মসূচি [২]মুজিববর্ষে ৯ লাখ ঘর উপহার দেওয়ায় বঙ্গবন্ধুর আত্মা খুব শান্তি পাবে, বললেন ড. আতিউর রহমান

আমাদের নতুন সময় : 25/01/2021

সমীরণ রায়: [৩] বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্বাচনী ইশতেহারে সমাজের নিচু তলার মানুষের কথা বলেছেন। তিনি ইশতেহারে দেওয়া অঙ্গিকার বাস্থবায়ন করেছেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সারাজীবন নিচের মানুষদের কথা ভেবেছেন। সেই ভাবনা থেকেই প্রধানমন্ত্রী এই উদ্যোগ নিয়েছেন। দারিদ্র্য বিমোচনের জন্য এটি একটি বড় উপায়। এটির একটি মনস্তাত্বিক দিক রয়েছে। [৪] তিনি বলেন, ইতোমধ্যে প্রধানমন্ত্রী সারাদেশে ৭০ হাজার গৃহ ও ভূমিহীনদের ঘর উপহার দিয়েছেন। আরও প্রায় ৮ লাখ ঘর দেবেন। এটি একটি বড় ঘটনা অস্বীকার করার কোনো সুযোগ নেই। ১০ জানুয়ারি তিনি দেশে ফিরে বলেছিলেন, স্বাধীনতা এনেছি। এখন গরীব মানুষের শিক্ষা, বস্ত্র, খাদ্য ও বাসস্থানের ব্যবস্থা করা জরুরি। তাই বাসস্থান উপহার দেওয়া একটি প্রধান হিউম্যান রাইটস। এসডিজির সঙ্গেও এর একটা মিল রয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে, গৃহহীনকে বাসস্থানের ব্যবস্থা করতে হবে। [৬] ড. আতিউর রহমান বলেন, গৃহহীন মানুষ ঘর পেয়েছেন। তাদের একটি থাকার জায়গা হয়েছে। শুধু থাকার জায়গাই নয়, কাজেরও একটি স্থান হয়েছে। এটা শুধু একটা ঘর নয়, কারখানাও বলা যেতে পারে। সন্তানরা ঘরে বসে পড়তে পারবেন। যখন তারা রাস্তায় বসবাস করতো তখন সেখানে বসে পড়াশুনা করা খুব কঠিন ছিলো। এতে তাদের আত্ম মর্যাদা বেড়েছে। তাছাড়া ঘরে বসে পুরুষরা চায়ের দোকানসহ তাদের বাইরের কাজের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে অনেক কিছু করতে পারবেন।সম্পাদনা: রায়হান রাজীব




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]