• প্রচ্ছদ » » আমরা যদি ভাষাকে আরও পরিণত করে তুলতে পারি তাহলে আমাদের চিন্তা-ভাবনা আরও স্পষ্ট এবং যথাযথ হবে


আমরা যদি ভাষাকে আরও পরিণত করে তুলতে পারি তাহলে আমাদের চিন্তা-ভাবনা আরও স্পষ্ট এবং যথাযথ হবে

আমাদের নতুন সময় : 23/02/2021

কামরুল আহসান : ভাষা দূষিত। বাংলা ভাষা সম্ভবত আরেকটু বেশি দূষিত। বাংলা ভাষায় সিরিয়াসনেস কম। বকবকানি বেশি। কোনো কাজের কথা বলতে গেলে রিপিটিশন করতে হয়। এর কারণ বক্তা শ্রোতার ওপর খুব বেশি আস্থা রাখতে পারেন না। একবারের অধিক না বললে গুরুত্ব দেবেন না বলে মনে করেন। তার সঙ্গে আছে এক নিঃশ^াসে অনেকগুলো বাক্য সম্পন্ন করার প্রবণতা। এর কারণও শ্রোতার প্রতি অনাস্থা। বক্তা মনে করেন শ্রোতা হয়তো সব কথা শুনবে না। অপ্রয়োজনীয় কথা বলায় বাঙালির জুড়ি মেলা ভার। এর প্রমাণ শুধু দৈনন্দিন আলাপচারিতা বা ফেসবুকেই নয়, সমগ্র বাংলাসাহিত্য জুড়েই ছড়ানো আছে। বাংলা নাটক, সিনেমাগুলো ভাষার কচকচানিতে ভরপুর। কেন বাংলা ভাষা এমন বাচাল সর্বস্ব হয়ে ওঠলো তার কারণ অনুসন্ধান করতে গেলে নৃ-তাত্তি¡ক গবেষণা প্রয়োজন। ভাষা তো শুধু কথা না। কথা তো স্বগোত্রের পশুপাখিরাও বলে নিজেদের মধ্যে। ভাষা মানে এমন এক সত্তা যে সত্তা বিশ^ ভ‚ক্ষাÐের আত্মাকে অন্বেষণ করবে। বিশ^ ভ‚ক্ষাÐের আত্মা তো দূরের কথা, আমরা তো এখন পাশের মানুষটির আত্মাই হত্যা করছি প্রতিনিয়ত। যে-ভাষা সমগ্র মানব সমাজের, সমস্ত প্রাণিকুলের মঙ্গলের নেপথ্যে ঐক্য স্থাপন করতে পারত, সে-ভাষাই তৈরি করছে অসংখ্য বিভাজন রেখা। তাই বলা যায় ভাষা আসলে লেনদেনের মাধ্যমের বাইরে খুব বেশি কাজে লাগছে না। শাহযাদ ফিরদাউস তার ‘ব্যাস’ উপন্যাসটি শেষ করেছিলেন এই প্রত্যয়ে যে, আমাদের ভাষাকে আরও পরিণত করতে হবে। কুরুক্ষেত্র যুদ্ধের পর মহামুনি কৃষ্ণ দ্বৈপায়ন ব্যাস যখন অন্যান্য মুনিঋষিদের সঙ্গে যাত্রা করেন জ্ঞান অন্বেষণের পথে তখন সহচর বৈশস্পায়নকে বলেন, ‘মানুষের ভাষা এখনো অপরিণত। তাই আমরা পরস্পরের মনোভাব কখনো সঠিকভাবে উপলব্ধি করতে পারি না। তাই অকারণ ভুল বুঝি, ভুল বোঝাই। তাই সংঘাতের জন্ম হয়। আমাদের অপরিণত ভাষা চিন্তা জগৎকে অস্বচ্ছ অবস্থায় রেখেছে।
ফলে আমাদের মস্তিষ্কের সুপ্রয়োগ এখনো সম্ভব হয়নি। যদি আমরা ভাষাকে আরও পরিণত করে তুলতে পারি, তাহলে আমাদের চিন্তা-ভাবনা আরও স্পষ্ট এবং যথাযথ হবে। ঠিক একইভাবে ভাষার দিক থেকে এবং ব্যক্তির দিক থেকে দৃষ্টি সরিয়ে সমষ্টির দিকে তাকাও। সমষ্টির অবস্থানের দিকে তাকাও। সমগ্র ভ‚খÐের দিকে তাকাও। বিচ্ছিন্ন ব্যক্তির মতোই আমাদের বিশাল ভ‚খÐ ছিন্ন-বিচ্ছিন্ন, অগ্রন্থিত, অদৃঢ় ভিত্তির ওপর প্রতিষ্ঠিত। অদৃঢ় ভ‚খÐের ভিত্তি দৃঢ় করতে হবে। সমগ্র মানুষকে তার বিচ্ছিন্নতার থেকে যেমন সংঘবদ্ধ করা প্রয়োজন তেমনি সমগ্র ভ‚খÐের বিচ্ছিন্নতাকে ঐক্যবদ্ধ করা প্রয়োজন।’ ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]