• প্রচ্ছদ » » মাতৃভাষার প্রতি রাসূল (স.) ছিলেন গভীর অনুরাগী


মাতৃভাষার প্রতি রাসূল (স.) ছিলেন গভীর অনুরাগী

আমাদের নতুন সময় : 23/02/2021

আল্লামা ফরীদউদ্দীন মাসউদ : মাতৃভাষা হচ্ছে একটা পরিচয় এবং স্বভাবজাত বিষয়। ভাষার মাধ্যমেই মনুষ একে অপরের সঙ্গে যোগাযোগ ও প্রভাব বিস্তার করতে পারে। ভাষার মাধ্যমেই পৃথিবীর সকল মানুষকে একই ছায়াতলে নিয়ে আসা যায়। ভাষার মাধ্যমেই মানুষ তার সুখ, দুঃখ, হাসি-কান্না, অনুভ‚তি প্রকাশ করতে পারে। ইসলামে মাতৃভাষার গুরুত্ব অনেক। আল্লাহ সকল ভাষাই বোঝেন। তার কাছে সকল ভাষার গুরুত্ব সমান। আল্লাহ কোরআন শরীফে বলেছেন, আমি সকল নবী-রাসূল প্রেরণ করেছি তাদের নিজেদের মাতৃভাষায়। যাতে তারা মানুষকে খুব সহজ-সাবলীল ও কার্যকরভাবে মানব জাতিকে স্পষ্টভাবে ইসলাম বোঝাতে পারেন। রাসূল (স.) ছিলেন আরবি ভাষী। তিনি তার নিজের ভাষা নিয়ে গৌরব করতেন। এ থেকে বোঝা যায়, মাতৃভাষার প্রতি রাসূল (স.) ছিলেন গভীর অনুরাগী। মাতৃভাষার উন্নয়নে খেলাফতের সময় বিশেষ করে ওমরের শাসনামলে প্রাচীন বিভিন্ন সাহিত্য সংগ্রহ করে উদ্যোগ গ্রহণ করেছিলো। প্রত্যেক ভাষাতেই ইসলামে অনেক বিখ্যাত ব্যক্তি ছিলেন, যারা নিজেদের ভাষায় কথা বলতেন। শেখ সাদি তার নিজের ভাষায় বড় আলেম ছিলেন। সুতরাং মাতৃভাষায় চর্চা ও জ্ঞান অর্জন করা একান্ত কর্তব্য ও দায়িত্ব। সকলের উদ্দেশ্যে বলতে চাইÑ এক সময় বাংলা ভাষায় আলেমদের অবদান কম ছিলো না। পৃথিবীর বিখ্যাত অনেক কবি-লেখক আলেম ছিলেন। বর্তমানে এ বিষয়ে আলেম সমাজের এগিয়ে আসা উচিত, যাতে তারা মানুষের সামনে বক্তব্য সুন্দরভাবে উপস্থাপন এবং মননের উন্নয়ন সাধন করতে পারেন। ভাষা সম্পর্কে কোরআনে বলা হয়ছে, পরিচয় দেওয়ার জন্যই মানুষকে সৃষ্টি করা হয়েছে বিভিন্ন গোষ্ঠী ভাষা। পরিচিতি : ইসলামি চিন্তাবিদ। অনুলেখক : শাহিন হাওলাদার




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]