• প্রচ্ছদ » » সাংবাদিক ও বুদ্ধিজীবী সিরাজুদ্দীন হোসেনের জন্মদিন আজ তিনি ছিলেন বাংলাদেশে অনুসন্ধানী প্রতিবেদনের জনক


সাংবাদিক ও বুদ্ধিজীবী সিরাজুদ্দীন হোসেনের জন্মদিন আজ তিনি ছিলেন বাংলাদেশে অনুসন্ধানী প্রতিবেদনের জনক

আমাদের নতুন সময় : 01/03/2021

মাসুদ হাসান : সিরাজুদ্দীন হোসেন ১৯২৯ সালের ১ মার্চ মাসে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি মুর্শিদাবাদের নবাব বাহাদুর স্কুল, যশোর জেলা স্কুলে পড়াশোনা শুরু করেন। তিনি ম্যাট্রিক পাস করেন এবং যশোর মাইকেল মধুসূদন দত্ত কলেজে আইএ-তে ভর্তি হন। তিনি ১৯৪৭ সালে ছাত্রাবস্থায় ‘দৈনিক আজাদ’-এ সাংবাদিকতা শুরু করেন এবং পরে ‘আজাদ’-এর বার্তা সম্পাদক হন। তিনি আজাদ পত্রিকায় ভাষা আন্দোলনের পক্ষে বলিষ্ঠ সাংবাদিকতা করেন। ১৯৫৪ সালে যুক্তফ্রন্ট ভেঙে গেছে-এরকম একটি সংবাদ পত্রিকার প্রধান শিরোনাম করার জন্য সম্পাদক মওলানা আকরাম খাঁ রেখে যান। কিন্তু যুক্তফ্রন্ট অফিস থেকে যুক্তফ্রন্ট না ভাঙার বিষয়টি জানিয়ে একটি বিবৃতি পাঠানোয় সিরাজুদ্দীন হোসেন দায়িত্বশীল সাংবাদিকতার নিক্তিতে সংবাদটি বিচার করে ছেপেছিলেন। তিনি ১৯৭১ সালে ৭ মার্চের বঙ্গবন্ধুর ভাষণটি বেতারে প্রচারের দাবি জানিয়ে আওয়ামী লীগ নেতা তোফায়েল আহমেদের নামে ছাপিয়ে দেন ইত্তেফাকে।
যুদ্ধের সময় সিরাজুদ্দীন হোসেন ‘ঠগ বাছিতে গাঁ উজাড়’ নামে একটি উপ-সম্পাদকীয় লেখেন যেখানে তিনি স্পষ্ট ভাষায় বলেন, যে দোষে শেখ মুজিবকে দোষী বলা হচ্ছে, পশ্চিমা রাজনীতিকরা সেই একই দোষে দুষ্ট। ১৯৭১ সালের ১০ ডিসেম্বর তাকে তার বাড়ি থেকে ধরে নিয়ে যায় পাকিস্তানি বাহিনী ও আলবদর বাহিনীর লোকেরা। তারপর তার আর কোন খোঁজ পাওয়া যায়নি। তিনি মানিক মিয়া স্বর্ণপদক (মরণোত্তর), ২০১০ সিরাজুদ্দীন হোসেন ইন্টারন্যাশনাল প্রেস ইনস্টিটিউট অ্যাওয়ার্ডের জন্য মনোনয়ন লাভ করেছিলেন। তার রচনাসমুহ:‘ছোট থেকে বড়ো’ ‘মহীয়সী নারী’ ‘ইতিহাস কথা কও’।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]