• প্রচ্ছদ » » বাঙালি সমাজে মেয়েদের জীবন কেমন?


বাঙালি সমাজে মেয়েদের জীবন কেমন?

আমাদের নতুন সময় : 02/03/2021

ফাহমিদা নীলা : মেয়ে কুমারী থাকলে ‘ধামড়া’ মেয়ে বিয়ে না দিয়ে কেউ পুষে! কেমন বাপ-মা। আইবুড়ো মেয়ে ঘরে রেখে ঘুমায় কেমন করে? মাথায় ঢোকেনা। দুদিন পরে ওই মেয়ে যখন একা একা বিয়ে পুষবে আর না হলে এমনি এমনি কারও সঙ্গে থাকা শুরু করবে, তখন বুঝবে ঠেলা। কথায় বলে, সময়ের এক ফোঁড় আর অসময়ের দশ ফোঁড়। বিয়ের পর মেয়ে ভালো থাকলে ইহ! কত্ত ভালো থাকে, দেখা যাবে। ওগল্যা সবই ওপর দিয়ে ঢঙঢাঙ দেখায়। কত্ত দেখলাম। দেখতে দেখতে মাথার চুল পেকে গেলো। দেখেন গিয়া, ওপরে ফিটফাট ভেতরে সদরঘাট। বিয়ের পর মেয়ে খারাপ থাকলে আমি আগেই জানতাম, ওই মেয়ে সংসার করার মেয়ে না। খালি পরের বেটার দোষ দিলে তো আর হবে না। আমরা সংসার করি না। কার সংসারে ঝামেলা নেই? তাই বলে মানুষ জানবে কেন? আপন ভালো তো জগৎ ভালো। ঝামেলার পর মেয়ে সংসার করলে স্বামীর কুকীর্তি জানার পরেও সংসার করছে, ওই মেয়ে ভালো মনে করেছেন? হতেই পারে না। দেখেন, এদিকে স্বামী অন্য মেয়ের সঙ্গে ইয়ে করে বেড়ায়, ওদিকে হয়তো মেয়ে আরেক পুরুষ জোগাড় করে ফেলেছে। না হলে, এসব সহ্য করে থাকতে পারে কোনোদিন কেউ? ও থাকার চেয়ে না থাকাই ভালো। কথায় বলে না, দুষ্ট গরুর চেয়ে শূণ্য গোয়াল ভালো। মেয়ে সংসার ছেড়ে বেরিয়ে এলে। বুঝলাম, স্বামী ভালো না। তো, তুই তো ভালো মেয়ে, ঠিক কি না? নাকি ওরও কোথাও কিছু আছে, কে জানে। তুই কি আরেকটু সহ্য করে থাকতে পারতিস না?
মেয়েদের ধৈর্য্য ধরতে হয়, সবর করতে হয়। ধৈর্য্য ধরে থাকলে ঠিকই একদিন সব ঠিক হয়ে যেতো। কথায় বলে, সবুরে মেওয়া ফলে। মেয়ে দ্বিতীয় বিয়ে করলে ছিঃ ছিঃ ছিঃ, কী দরকার ছিলো তোর বিয়ে করার? একা থাকতে পারতিস না। ওর থেকে কতো অল্পবয়সী মেয়ের স্বামী মরে যায়, ছাড়াছাড়ি হয়ে যায়। তারা থাকছে না? আসলে এগুলো খারাপ মেয়ে, বুঝেছেন। পুরুষ মানুষ ছাড়া এরা থাকতেই পারেনা। ওই যে বলে না, না থাকলে ভাতার, জীবনের কী আছে আর। মেয়ে একা থাকলে বুঝেছেন, এসব মেয়ের জন্যই সমাজটা নষ্ট হয়।… মেয়ে কি একা চলতে পারে? ঠিকই দেখেন গিয়ে ভেতরে ভেতরে কারো সঙ্গে ইটিস-পিটিস আছে। আরে, ধর্মে কি তোর মানা আছে? এক স্বামী গেছে, তুই ধর্ম মেনে আরেকটা বিয়ে কর। সমাজের তো একটা রীতি আছে, নাকি? এরা হলো গিয়ে খোলা তেজোরির মতন। এরকম একা মেয়ে সামনে দেখলে, আশেপাশের ছেলেবুড়োরা ঠিক থাকে? তাই না বলেন? সর্ববিষয়ে প্রতিক্রিয়াশীল অলস জং ধরা মস্তিষ্ক আর টিপ্পনি কাটার জন্য সুড়সুড় করা জিহŸাওয়ালা বাঙালিদের জন্য এক বঙ্গপোসাগর সমবেদনা। এবার আপনারা মানুষ হন। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]