• প্রচ্ছদ » » আজকের ছাত্রলীগ স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম পতাকা উত্তোলন দিবস স্বাধীনতার ইস্তেহার পাঠের ঐতিহাসিক দিন দুটি পালন করে না!


আজকের ছাত্রলীগ স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম পতাকা উত্তোলন দিবস স্বাধীনতার ইস্তেহার পাঠের ঐতিহাসিক দিন দুটি পালন করে না!

আমাদের নতুন সময় : 03/03/2021

ফজলুল বারী : এখন বাংলাদেশে চাটুকারিতার কী ভয়ংকর এক সময়। ইতিহাস কি চাটুকারিতা দিয়ে হয়? যেকোনো সমাজের অনেক মানুষ মিলে একটি সংগঠন হয়। সেই সংগঠনের একজন নেতা থাকেন। বাংলাদেশের যে নেতার নাম বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। সময়ের প্রয়োজনে তার নামে অনেক কিছু হয়। কিন্তু তার নামে যারা কাজগুলো করেন চাটুকাররা যখন তাদের অস্বীকার করেন তখন খর্ব হয় সেই নেতার ভ‚মিকাও। যেমন ২ মার্চ স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন দিবস। ১৯৭১ সালের এ দিনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বটতলায় তৎকালীন ছাত্রলীগ নেতা ও ডাকসুর ভিপি আ স ম আবদুর রব কেন্দ্রীয় ছাত্র সমাজের পক্ষে এই পতাকা তোলেন। মার্চের ৩ তারিখে একইভাবে স্বাধীনতার ইস্তেহার পাঠ করেন তৎকালীন ছাত্রলীগ নেতা শাহজাহান সিরাজ। এই দুটি ঐতিহাসিক ঘটনা দেশকে স্বাধীনতা যুদ্ধের পক্ষে উদ্বুদ্ধ, ঐক্যবদ্ধ করে। এরপর থেকে পঁচিশে মার্চের আগ পর্যন্ত সারাদেশে স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উড়েছে। ২৩ মার্চ পাকিস্তান দিবসে ছাত্ররা বঙ্গবন্ধুর ধানমন্ডির বত্রিশ নাম্বার রোডের বাড়িতেও পতাকা তোলেন। ২৫ মার্চের পাকিস্তানি ক্র্যাকডাউনের পর অনেকে পতাকাটি নামিয়ে ফেলতে বাধ্য হন। এরপর যখন যে এলাকা মুক্ত হয়েছে সবার আগে তোলা হয়েছে স্বাধীনতার সেই বিজয় পতাকা। কিন্তু আজকের ছাত্রলীগ স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম পতাকা উত্তোলন দিবস, স্বাধীনতার ইস্তেহার পাঠের এই ঐতিহাসিক দিন দুটি পালন করে না! না ব্যক্তি রব-সিরাজ পরে আওয়ামী লীগ না করায় ছাত্রলীগ নিজেদের সংগঠনের ঐতিহাসিক দুটি ঘটনার কৃতিত্বও পরিত্যাগ করেছে? অথচ এখানে রব-সিরাজ দু’জন ব্যক্তি মাত্র। ছাত্রলীগের নেতা না হলে তখন তারা হয়তো সেদিন সুযোগটিই পেতেন না। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]