• প্রচ্ছদ » শেষ পাতা » [১]৭ মার্চে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ দেওয়ার স্থান সাজানো হচ্ছে নতুন রূপে


[১]৭ মার্চে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ দেওয়ার স্থান সাজানো হচ্ছে নতুন রূপে

আমাদের নতুন সময় : 08/03/2021

বাশার নূরু: [২] সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে স্বাধীনতা স্তম্ভ নির্মাণ প্রকল্পের (৩য় পর্যায়) আওতায় সাজানো হচ্ছে ইতিহাসের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এ জায়গাটিকে।
[৩] স্বাধীনতা স্তম্ভ নির্মাণ প্রকল্পের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রমনা গণপূর্ত উপ-বিভাগ-১ এর উপ-সহকারী প্রকৌশলী হুমায়ুন কবির গণমাধ্যমকে বলেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে প্রাণবন্ত বা জাগ্রত করে রাখতে বাংলাদেশ সরকারের প্রচেষ্টায় ৩০ ফুট প্রশস্ত সৌন্দর্যবর্ধন জলধারার উপর ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ যেভাবে মঞ্চ সাজানো হয়েছিল সেই একই মঞ্চের আকৃতিতে নির্মিত হচ্ছে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণের ভাস্কর্য।
[৪] মঞ্চটির চারদিকে বিভিন্ন লেজার লাইটের মাধ্যমে আলোকিত করা হবে পুরো জায়গাটিকে। পাশাপাশি থাকবে ফুলের বাগান, জলধারার মাঝখানে গ্লাস টাওয়ার ও শিখা চিরন্তন বরাবর ৪০ ফিট প্রশস্ত পেডেস্ট্রেন রোড। নির্মাণাধীন বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যের জলধারার নিচে ঠিক মঞ্চটির আন্ডারগ্রাউন্ডে প্রায় ১ লাখ ৭৫ হাজার স্কয়ার ফিট জায়গার উপর গাড়ি রাখার ব্যবস্থা রাখা হচ্ছে। সেখানে প্রায় ৫৬০টি গাড়ি একসঙ্গে রাখা যাবে। আন্ডার গ্রাউন্ডে যাতায়াত করার জন্য তিনটি সিঁড়ি থাকবে। এছাড়া শিশু ও বয়স্কদের জন্য থাকছে দুইটি লিফট।
[৫] দর্শনার্থীদের জন্য থাকছে ৭টি ফুড কোর্ট। এছাড়া মঞ্চটির পাশেই সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ও শিশু পার্কে আগত দর্শনার্থীদের জন্য ৫০ ফিট লম্বা ও ৫০ ফিট চওড়া দৃষ্টিনন্দন একটি মসজিদসহ জনসভার জন্য স্থায়ী মঞ্চ নির্মাণ করা হচ্ছে। থাকছে গ্লাস টাওয়ারের চারদিকে গ্রিন হেজ বাউন্ডারি ও ৪৪টি আধুনিক ফুলের দোকান।
[৬] ১০০ কোটি টাকা ব্যয়ে ২০১৯ সালের জুলাই মাসে এ প্রকল্পের কাজ শুরু হয়েছে। প্রকল্পটি শেষ হওয়ার কথা রয়েছে ২০২৩ সালের ২২ জুন। সম্পাদনা: রায়হান রাজীব

 




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]