• প্রচ্ছদ » শেষ পাতা » [১]বাংলাদেশে লকডাউনে ভারতের অর্থনীতি ধাক্কা খেতে চলেছে, আনন্দবাজার পত্রিকার প্রতিবেদন


[১]বাংলাদেশে লকডাউনে ভারতের অর্থনীতি ধাক্কা খেতে চলেছে, আনন্দবাজার পত্রিকার প্রতিবেদন

আমাদের নতুন সময় : 07/04/2021

মাছুম বিল্লাহ: [২] মঙ্গলবার আনন্দবাজার পত্রিকার একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, করোনা পরিস্থিতি এবং লকডাউনের কারণে গত এক বছর ধরে ধুঁকছিল ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তের পেট্রাপোল বন্দরকেন্দ্রিক অর্থনীতি। সেই ক্ষত মেরামতের আগেই আবারও ধাক্কা। [৩] পত্রিকাটি লিখেছে, গত বছর লকডাউনের আগে পর্যন্ত প্রতি দিন পেট্রাপোল-বেনাপোল বন্দর দিয়ে প্রায় ১৫ হাজার মানুষ যাতায়াত করতেন। গত বছর মার্চ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত যাত্রীদের যাতায়াত নিয়ন্ত্রিত ছিল। কয়েক মাস আগে দু’দেশের মধ্যে যাতায়াত শুরু হলেও এখনও স্বাভাবিক হয়নি পরিস্থিতি। কারণ, এখনও ট্যুরিস্ট ভিসা, ই-ভিসা দেওয়া হচ্ছে না। রোববার দু’দেশের মধ্যে যাতায়াত করেছেন ১,৯২৬ জন। সোমবার দুপুর পর্যন্ত সংখ্যাটা ৬৫৮ জন। অন্য দিন দুপুর পর্যন্ত সংখ্যাটা থাকে প্রায় ৯০০। সোমবার মূলত বাংলাদেশে থাকা ভারতীয়রা এবং ভারতে থাকা বাংলাদেশিরা দেশে ফিরেছেন। [৪] পেট্রাপোল বন্দরে হোটেল ব্যবসা, পরিবহণ ব্যবসা, মুদ্রা বিনিময় ব্যবসা ধুঁকছে। অনেকেই ছোটখাটো দোকানি। তাদের অবস্থাও তথৈবচ। অনেক দোকানপাট বন্ধ। মুদ্রা বিনিময় কেন্দ্রগুলি যাত্রীদের অভাবে ফাঁকা। বাস, অটো বা অন্য যানবাহন স্ট্যান্ডে দাঁড়িয়ে আছে। হোটেলে লোকজনের ভিড় নেই। মালপত্র বহন করা শ্রমিকেরা বসে গল্পগুজবে ব্যস্ত। অভিবাসন, শুল্ক দফতরের সামনে ছিল না দেশে ফেরার যাত্রীদের লম্বা লাইন।[৫]পেট্রাপোল ক্লিয়ারিং এজেন্ট স্টাফ ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের সম্পাদক কার্তিক চক্রবর্তী বলেন, ‘এ দিন দুপুর পর্যন্ত ১৪০টি ট্রাক পণ্য নিয়ে বেনাপোলে গিয়েছে। বাণিজ্যে এখনও প্রভাব না পড়লেও বাংলাদেশের করোনা পরিস্থিতির উন্নতি না হলে আগামী দিনে প্রভাব পড়বে। সম্পাদনা: বাশার নূরু




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]