প্রকাশিত: Fri, Nov 10, 2023 11:50 PM
আপডেট: Thu, Jul 25, 2024 6:27 AM

[১]মেহেরপুরে ৫৫টি ওয়াটার প্লান্টের ৫২টি নষ্ট: আর্সেনিক আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে

 সিরাজুদ্দোজা পাভেল, মেহেরপুর: [২] বেসরকারি সংস্থা সেভ দ্যা চিলড্রেন কর্তৃপক্ষ প্লান্টগুলো নির্মাণ করে। তবে তাদের কার্যক্রম মেহেরপুর থেকে তুলে নেওয়ায় রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে প্লান্টগুলো অকেজো হয়ে পড়ে রয়েছে। 

[৩] মুজিবনগর উপজেলার জয়পুর তারানগর, মেহেরপুর সদরের আলমপুর, আমঝুপি, বেলতলাপাড়া, গাংনী উপজেলার ভোলাডাঙ্গা,মানিকদিয়া, তেঁতুলবাড়িয়া সহ বিভিন্ন গ্রামে আর্সেনিকের উপস্থিতি মাত্রারিক্ত।

[৪] এসব এলাকায় ২০১৫-২০১৬ সালে সুপেয় পানির জন্য বেসরকারি সংস্থা সেভ দ্যা চিলড্রেন ৫২ আর সরকারিভাবে ৩টি ওয়াটার প্লান্ট নির্মাণ  করা হয়।

[৫] এসব প্লান্ট রক্ষণাবেক্ষণের জন্য সংশ্লিষ্ট এলাকায় ১০ সদস্য বিশিষ্ট একটি সমিতি করে দেওয়া হয় যাতে এই সমিতি থেকে কিছু চাঁদা তুলে নষ্ট হওয়া প্লান্টগুলো মেরামত করতে পারে।  ২০১৮ সালে বেসরকারি সংস্থা সেভ দ্যা চিলড্রেন এর কার্যক্রম গুটিয়ে অন্য জেলায় চলে যায়। 

[৬] এরপর থেকে প্লান্টগুলো  রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে অকেজো হয়ে পড়েছে। পাইপে মরিচা ধরেছে । রাতের  বেলায় চুরি হয়ে গেছে অনেক যন্ত্রাংশ। প্লান্টগুলো অকেজো হয়ে পড়ে থাকায় বাধ্য হয়ে আর্সেনিকযুক্ত পানি পান করছে এলাকাবাসী। ফলে দিন দিন বাড়ছে আর্সেনিক আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা। 

[৭] ভুক্তভোগীরা জানান, পানির প্লান্ট থেকে আর্সেনিকমুক্ত পানি পান করে মানুষ সুস্থ ছিলো। নষ্ট হয়ে যাওয়ায় এখন আর্সেনিকযুক্ত পানি পান করে মানুষ অসুস্থ হয়ে পড়ছে। যাদের দায়িত্ব আছে প্লান্টগুলো রক্ষণাবেক্ষণ করার তারা এটা করে না। 

[৮] মেহেরপুর সিভিল সার্জন (ভারপ্রাপ্ত) ডা. জমির হাসিবুস সাত্তার জানান, আর্সেনিক আক্রান্তদের চিকিৎসার চেয়ে এর প্রতিরোধ জরুরি। 

[৯] মেহেরপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য ও জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন  জানান, প্লান্টগুলো যাতে আবার চালু হয় তার জন্য  ব্যবস্থা নেওয়া হবে। সম্পাদনা : মুরাদ হাসান