প্রকাশিত: Wed, May 15, 2024 11:38 AM
আপডেট: Sat, May 18, 2024 10:11 PM

[১]নিষেধাজ্ঞা শিথিল হতে পারে মার্কিন সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডোনাল্ড লু’র সফরে

খুররম জামান: [২] মঙ্গলবার সকালে হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে মার্কিন সহকারী  পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডোনাল্ড লুকে স্বাগত জানান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের উত্তর আমেরিকা অনুবিভাগের মহাপরিচালক খন্দকার মাসুদুল আলম এবং ঢাকাস্থ মার্কিন রাষ্ট্রদূত পিটার হাস।  

[৩] গত জানুয়ারির দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা হিসেবে এটি তার প্রথম সফর। 

[৪] রাজধানীর গুলশানে মার্কিন রাষ্ট্রদূত পিটার হাসের বাসায় গণমাধ্যম, মানবাধিকার, জলবায়ু কর্মী ও শ্রমিক নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেন সফররত যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণ ও মধ্য এশিয়াবিষয়ক সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডোনাল্ড লু।

[৫] মঙ্গলবার রাতে দক্ষিণ ও মধ্য এশিয়াবিষয়ক মার্কিন সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডোনাল্ড লু  প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান এফ রহমানের নৈশভোজ বৈঠকে যোগ দেন।

[৬] এদিকে সফরের দ্বিতীয় দিন ডোনাল্ড লু বুধবার পররাষ্ট্রসচিব মাসুদ বিন মোমেনের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় আলোচনা করবেন। 

[৭] তিনি পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাছান মাহমুদের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করবেন। ৩ দিনের এ সফরে নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিদের সঙ্গেও মতবিনিময়ের কথা রয়েছে তার। 

[৮] ডোনাল্ড লুর সফরে বিশেষ করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ভিসানীতি এবং র?্যাবের কয়েকজন কর্মকর্তার ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা নিয়ে আলোচনা তোলা হবে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। 

[৯] সফরকালে ডোনাল্ড লু ঢাকা-ওয়াশিংটন সম্পর্ক নিয়ে আলোচনা করবেন। একই সঙ্গে বাংলাদেশের নতুন সরকারের কাছে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের নীতি ও দৃষ্টিভঙ্গি তুলে ধরবেন তিনি।

[১০] ইন্দো প্যাসিফিক কৌশলের-আইপিএস মাধ্যমে সমুদ্রে চীনের আধিপত্য ঠেকানোর বার্তাও দিতে পারেন লু।

[১১] মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তর জানিয়েছে, ভারত, শ্রীলঙ্কা ও বাংলাদেশ সফর করবেন ডোনাল্ড লু। তার এ সফরের মধ্য দিয়ে দেশগুলোর সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক জোরদার হবে বলে প্রত্যাশা করছে ওয়াশিংটন। যুক্তরাষ্ট্র যে একটি মুক্ত, অবাধ ও সমৃদ্ধ ভারত-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চল দেখতে চায়, ডোনাল্ড লুর সফরে সেটাই গুরুত্ব পাবে।

[১২] বাংলাদেশ আসার আগে ডোনাল্ড লু সোমবার শ্রীলঙ্কার বিরোধী দল সামাগি জনা বালাওয়েগয়া (এসজেবি), পিপলস পাওয়ার (এনপিপি) এবং জাতীয় দলসহ  রাজনৈতিক নেতাদের সঙ্গে বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করেছেন। 

[১৩] এসব আলোচনায় শ্রীলঙ্কায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত জুলি চুংও অংশ নেন। তিনি টুইটে 'এক্স'-এসব পোস্ট করে জানান, দুটি বৈঠকের লক্ষ্য ছিল শ্রীলঙ্কার আসন্ন নির্বাচন এবং দেশের অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারের বিষয়ে রাজনৈতিক দলগুলোর চিন্তাভাবনা  এবং দেশটির সামনের এগিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা নিয়ে তাদের দৃষ্টিভঙ্গি সম্পর্কে জ্ঞান অর্জন করা। 

[১৪] এনপিপির প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠকের সময় আলোচনাটি শ্রীলঙ্কার বর্তমান অর্থনৈতিক পরিস্থিতি, আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) হস্তক্ষেপ, অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন পরিচালনা এবং ভারত মহাসাগর অঞ্চলের নিরাপত্তার উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে। এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন এনপিপি কার্যনির্বাহী কমিটির বেশ কয়েকজন সদস্য যার মধ্যে ওয়াসান্থা সমরাসিংহে, বিজিতা হেরাথ এবং ড. নালিন্দা জয়তিসা। সম্পাদনা: এম খান