• প্রচ্ছদ » » পরিকল্পনা করে যাকাত দিলে অনেকের দারিদ্র্য বিমোচন সম্ভব


পরিকল্পনা করে যাকাত দিলে অনেকের দারিদ্র্য বিমোচন সম্ভব

আমাদের নতুন সময় : 17/04/2021

প্রভাষ আমিন : ইসলাম একটি বিজ্ঞানসম্মত জীবনবিধান। একজন মানুষ যদি ইসলামের সবগুলো বিধান নিয়ম করে মেনে চলে, তাহলে তিনি অবশ্যই শারীরিক-মানসিকভাবে সুস্থ ও উন্নত মানুষ হিসেবে বেড়ে উঠবেন। শুধু ব্যক্তি নয়; পরিবার, সমাজ, ইসলামের সত্যিকারের চেতনার প্রয়োগে এমনকি রাষ্ট্রীয় পর্যায়েও আসতে পারে দারুণ পরিবর্তন। ইসলামের পাঁচ ফরজের একটি হলো নামাজ। করোনা ভাইরাস আসার পর বার বার হাত ধোয়া আর পরিচ্ছন্ন থাকার কথা বলা হচ্ছে। আর ইসলাম কিন্তু চৌদ্দ শ’ বছর আগে দিনমান পরিচ্ছন্ন থাকার উপায় বাতলে দিয়েছে। দিনে পাঁচবার নামাজ পড়তে হলে হয় আপনাকে হয় সারাদিন পরিচ্ছন্ন থাকতে হবে, নয় অন্তত সব নামাজের আগে অজু করে পরিচ্ছন্ন হতে হবে। তার মানে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়লেই আপনি মোটামুটি সারাদিন পরিচ্ছন্ন থাকবেন। ইসলামে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতাকে ঈমানের অঙ্গ বলা হয়। খাবার আগে হাত ধোয়া নিশ্চিত করতে আমরা কতো আয়োজন করি, কতো বিজ্ঞাপন বানাই। ইসলাম অনুসরণ করলে পরিচ্ছন্ন থাকতে আপনাকে আর আলাদা করে ভাবতে হবে না। পরিচ্ছন্ন থাকলে আপনি দূরে থাকবেন করোনা ভাইরাস থেকে। পরিচ্ছন্ন থাকলে ইউরিন ইনফেকশন থেকে রক্ষা পাবেন।
পেটের, লিভারের, কিডনির নানা অসুখ থেকেও আপনি রক্ষা পাবেন। এতো কিছু পেতে আপনাকে কিছুই করতে হবে না, শুধু পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পরতে হবে। নিয়মিত নামাজ পড়তে হলে আপনাকে ভোরে উঠতে হবে। ভোরে উঠলে যে স্বাস্থ্য ভালো থাকে, সেটা নিশ্চয়ই আলাদা করে বলার দরকার নেই। এখন করোনার কারণে মসজিদে না যাওয়াই ভালো। কিন্তু সাধারণ সময়ে ভোরে যদি আপনি মসজিদে নামাজ পড়তে যান, মর্নিং ওয়াকটা পেয়ে যাবেন বোনাস। আর সকালের প্রকৃতিতে যে বিশুদ্ধ অক্সিজেন থাকে তার কোনো মূল্য হয় না। স্বাভাবিক সময়ে ভোরে ঘুম থেকে উঠে মসজিদ থেকে নামাজ পড়ে এলে আপনার মনে যে ফুরফুরে পবিত্র ভাব আসবে তা বদলে দিতে পারে, আপনার দিনটাই। নিশ্চয়ই একদিন পৃথিবীটা সুস্থ হবে। আমরা সবাই আবার ভোরে মসজিদে গিয়ে নামাজ পড়তে পারব।
ইদানিং আশপাশে খালি ব্যাকপেইনের রোগীর কথা শুনি। ব্যাকপেইন কেন হয়? আমরা যে নিয়ম না মেনে ঘণ্টার পর ঘণ্টা বসে থাকি, তাতেই ব্যথা আমাদের পিছু নেয়। বয়স হলে আরও কতো যে অসুখ বাসা বাঁধে শরীরে। কারো রক্তে চিনি বেশি, কারো বা কোলেস্টেরল। ডাক্তারের পরামর্শে কেউ হাঁটে, কেউ সাঁতরায়, কেউ জিমে যায়, কেউ ডায়েটিং করে। কেউ যদি নিয়ম করে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়েন, ব্যাকপেইন সহজে তাকে ছুঁতে পারবে না। পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়লে আপনাকে জিমে যেতে হবে না, মর্নিং ওয়াকও হয়তো করতে হবে না। আমি বলছি না, নিয়মিত নামাজ পড়লেই আপনার কোনো অসুখ হবে না। কিন্তু ডাক্তাররা এখন আপনাকে যা বলেন, ১৪শ বছর আগেই ইসলাম তা বলে রেখেছে। যুগে যুগে, দেশে দেশে, মানুষে মানুষে বৈষম্য আছে। এই বৈষম্য ঘোচাতে যুগে যুগে তাত্তি¡করা অনেক তত্ত¡ দিয়েছেন, অনেক বিপ্লব হয়েছে। কিন্তু সঠিকভাবে ইসলাম অনুসরণ করলে বৈষম্যকে একটা নির্দিষ্ট মাত্রায় নামিয়ে আনা সম্ভব। নির্ধারিত যাকাত দেওয়ার মাধ্যমে সম্পন্ন মুসলমানরা তার পাশের দরিদ্রজনকে সাহায্য করতে পারেন। পরিকল্পনা করে যাকাত দিলে অনেকের দারিদ্র্য বিমোচনও সম্ভব। ইসলামে মিথ্যা বলা মহাপাপ। একবার ভাবুন সব মুসলমান যদি সত্যি কথা বলেন, তাহলেই তো সমাজের অনেক সমস্যা মিটে যাবে। কিন্তু সমস্যা হলো আমাদের দেশে যারা ইসলামের কথা বলেন বেশি, তারাই ইসলামের অবমাননাও করেন সবচেয়ে বেশি। হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হক কদিন আগে বন্ধুর স্ত্রীকে নিয়ে রিসোর্টে গিয়ে ধরা খেয়ে এখন একের পর এক মিথ্যা বলছেন। আইনজীবীরা যেমন আইনের ফাঁক-ফোকর ভালো জানেন। ইসলামি শিক্ষায় শিক্ষিতরাও তেমনি ইসলামের নিয়ম ভালো বোঝেন। মামুনুলও তার লাম্পট্য ঢাকার জন্য ইসলামকে ঢাল হিসেবে ব্যবহার করছেন। মজুদদারি, মানুষ ঠকানো, ঘুষ খাওয়া ইসলামে পাপ। কিন্তু সমস্যা হলো, আমরা সত্যিকারের ইসলাম অনুসরণ করি না। এমন অনেকে আছেন, নিয়মিত নামাজ পড়েন ঠিকই। কিন্তু নামাজ পড়েই ঘুষ খান, লোক ঠকান, দেদারসে মিথ্যা কথা বলেন। তার নামাজ কি আল্লাহ কবুল করেন? লেখক : হেড অব নিউজ, এটিএন নিউজ




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]