• প্রচ্ছদ » » সাহিত্যের বইয়ের সঙ্গে ইসলামি বই একই পাল্লায় মাপা হচ্ছে রকমারিতে!


সাহিত্যের বইয়ের সঙ্গে ইসলামি বই একই পাল্লায় মাপা হচ্ছে রকমারিতে!

আমাদের নতুন সময় : 17/04/2021

মাহবুব মোর্শেদ : ইসলামী বই সবসময়ই বিক্রির শীর্ষে থাকে। বাঙালির ঘরে আর কোনো বই না থাকুক, ধর্মীয় বই কিছু-না-কিছু থাকেই। ছোটবেলা থেকে দেখে আসছি, মফস্বল শহরে ইসলামী বই বিক্রির জন্য আলাদা দোকান থাকে। স্টেশনে, ফুটপাতেও এর আলাদা কদর। নোট বই বিক্রির দোকানে সাহিত্য ও অন্যান্য বই থাকুক বা না থাকুক ইসলামী বই থাকবেই। ঢাকা শহরেও এর ব্যতিক্রম নেই। স্বাভাবিকভাবেই রকমারিতে ইসলামি বই বিক্রির শীর্ষে থাকবে এতে সন্দেহের অবকাশ নেই। কিন্তু রকমারিতে যে বিষয়টা নতুন সেটা হলো, সাহিত্যের বইয়ের সঙ্গে ইসলামি বই এখানে একই পাল্লায় মাপা হচ্ছে। ইসলামি বই, উপন্যাস, ইতিহাসের বই, ইংরেজি শেখার বই, মোটিভেশনাল পুস্তক সবকিছুর জনপ্রিয়তা একসঙ্গে বিচার করা হচ্ছে।
অতীতের দিকে তাকালে আমরা দেখব, হুমায়ূন আহমেদের বইয়ের চেয়ে ডেল কার্নেগি বা ডাক্তার লুৎফর রহমানের মোটিভেশনাল বইয়ের কদর কম ছিল না। আবার বেহেশতী জেওর, তাজকেরাতুল আউলিয়া, মোকসেদুল মোমিনিন ইত্যাদি বইয়ের জনপ্রিয়তা হুমায়ূন আহমেদের চেয়ে বেশি ছিল। কিন্তু ডেল কার্নেগি হুমায়ূন আহমেদকে চ্যালেঞ্জ করতেন না। বেহেশতী জেওর এর বিক্রি নিয়ে লিটল ম্যাগাজিন বা পত্রিকার লেখকদের চিন্তিত হতে দেখা যেত না। সমাজের একেকটা কম্পার্টমেন্টে একেকজন রাজত্ব করতেন। এখন কম্পার্টমেন্ট ভাঙ্গার যে উদ্যোগ রকমারি নিয়েছে তা লেখালেখির জগতে এক ধরনের অস্থিরতা তৈরি করছে। এটা সমাজের স্থিতিশীলতার জন্য ভালো নয়। রকমারির উচিত এ বিষয়ে এখনই চিন্তাভাবনা করা। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]