• প্রচ্ছদ » প্রথম পাতা » [১]ছুটির দিনে শপিংমল, মার্কেটে হাজার হাজার মানুষের ভীড়, স্বাস্থ্য বিধি নিশ্চিহ্ন


[১]ছুটির দিনে শপিংমল, মার্কেটে হাজার হাজার মানুষের ভীড়, স্বাস্থ্য বিধি নিশ্চিহ্ন

আমাদের নতুন সময় : 02/05/2021

শিমুল মাহমুদ: [২] শনিবার রাজধানীর বিভিন্ন শপিংমল ঘুরে দেখা যায়, বেশির ভাগ মার্কেটে মানুষের দীর্ঘ লাইন, হাজারো মানুষের ভিড়ে নেই স্বাস্থ্যবিধি। কেনাকাটা করতে আসা বেশিরভাগই মধ্যবিত্ত ও উচ্চ বিত্ত পরিবারের। অধিকাংশই গাড়ি পার্কিং করেছে রাস্তায়। ফলে এই লকডাইনের মধ্যে তৈরি হচ্ছে যানজট।
[৩] শপিংমলে বেশিরভাগ মানুষ মাস্ক পড়লেও অনেকের মাক্স ছিলো থুঁতনির নিচে। আর ফুটপাতে ক্রেতা-বিক্রেতা অধিকাংশের মুখে ছিলো না মাস্ক। মাস্ক না পরার কারণ জিজ্ঞেস করতে জানান, এই গরমে মাস্ক পরে কেনাকাটা করা অনেক কষ্ট।
[৪] সরকারের কঠোর বিধিনিষেধ জারির পরও নগরবাসী কিংবা জনসাধারণের মধ্যে যেন নেই কোনও ধরনের করোনা ভীতি। এই সংকটময় সময়েও নিশ্চিন্তে ঈদের কেনাকাটা করছেন তারা।
[৫] কেনাকাটা করতে আসা এসব মানুষ জানান, পরিবার এবং আত্মীয়স্বজনের মন রক্ষা করতেই করোনা সংক্রমণের ভয়কে উপেক্ষা করেই এসেছেন তারা।
[৭] ধানমন্ডির হকার্স মার্কেটে বিয়ের শাড়ি এবং সংশ্লিষ্ট জিনিসপত্র বেচাকেনা চলছে তুলনামূলক বেশি। কেনাকাটা করতে আসা শীলা জানান, তারা ঘরোয়াভাবেই বিয়ের আয়োজন করছেন। করোনার প্রকোপ কবে শেষ হবে তার কোন নিশ্চয়তা নেই। তিনি বলেন, বছরের পর বছর তো এভাবে বিয়েশাদি আটকে রাখা সম্ভব না।
[৮] ঢাকার নিউমার্কেটে বিভিন্ন দোকান ঘুরে দেখা গেল, তীব্র তাপদাহেও ভাটা নেই কেনাকাটায়। ক্রেতারা বলছেন, ফুটপাথে জিনিসপত্রের দাম তুলনামূলক কম থাকায় এবং করোনার কারণে মানুষের হাতে নগদ অর্থের সংকট থাকায় সবাই কম দামেই কেনাকাটা সেরে নিচ্ছেন এবার।
[৯] একাধিক মার্কেট ঘুরে তেমন স্বাস্থ্যবিধি মানতে না দেখা গেলেও বসুন্ধরা সিটি শপিং মলে পাওয়া গেল কিছুটা সন্তোষজনক চিত্র। এখানে প্রবেশের সময় দেহের তাপমাত্রা মাপা হচ্ছে, জীবাণুনাশক স্প্রে ছিটানোসহ সচেতনতামূলক মাইকিং করা হচ্ছে। এছাড়া সংক্রমণ ঠেকাতে সব ধরনের লিফট তারা বন্ধ রেখেছেন। এসব পদক্ষেপকে স্বাগত জানিয়েছেন ক্রেতারা। প্রায় দোকানে অনেক মানুষের ভিড়। সম্পাদনা: তাপসী রাবেয়া




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]