• প্রচ্ছদ » প্রথম পাতা » [১]সংকট কাটাতে শিল্পখাতের অক্সিজেন হাসপাতালে সরবরাহের উদ্যোগ [২]সরকারের পাশে দাঁড়িয়েছে বেসরকারি খাত


[১]সংকট কাটাতে শিল্পখাতের অক্সিজেন হাসপাতালে সরবরাহের উদ্যোগ [২]সরকারের পাশে দাঁড়িয়েছে বেসরকারি খাত

আমাদের নতুন সময় : 04/05/2021

শিমুল মাহমুদ: [৩] ভারত থেকে অক্সিজেন আসা বন্ধ হয়ে গেছে। তবে স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা আশ্বস্ত করেছেন, এখন পর্যন্ত যে পরিস্থিতি, তা সামাল দেওয়ার মতো অক্সিজেন দেশে উৎপাদিত হচ্ছে।
[৪] চিকিৎসকরা জানান, বেশির ভাগ রোগীর প্রয়োজন হয় অক্সিজেনের, সঙ্গে কিছু ঔষধ। সিভিয়ার পেশেন্টদের ক্ষেত্রে হাইফ্লো নেজাল ক্যানুলা, ভেন্টিলেটর ও আইসিইউ। সারাদেশে ১৩০টি হাসপাতালে সেন্ট্রাল অক্সিজেনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। প্রায় ১৬ হাজার রোগী এই সুবিধা পাবেন।
[৫] স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক (হাসপাতাল ও ক্লিনিক) ফরিদ হোসেন বলেন, সংক্রমণের দ্বিতীয় ধাক্কায় দৈনিক অক্সিজেনের সর্বোচ্চ চাহিদা দাঁড়িয়েছিলো ১৫০ থেকে ১৬০ টনে। রোগীর সংখ্যা কিছুটা কমায় এখন হাসপাতালগুলোতে ১২০ থেকে ১৪০ টনের মতো অক্সিজেন লাগছে।
[৬] স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, অতিরিক্ত যদি কিছু না হয় তাহলে অক্সিজেনের সমস্যা হবে না। আমাদের লোকাল লিকুইড অক্সিজেন যারা তৈরি করে তাদের সবটা আমরা নিয়ে আমাদের হাসপাতালগুলোকে প্রয়োজনমাফিক দেবো।
[৭] জিপিএইচ ইস্পাত জানিয়েছে, সীতাকু-ে প্রতিষ্ঠানটির কারখানায় প্রতিদিন প্রায় ২৫০ টন অক্সিজেন উৎপাদিত হয়। আবুল খায়ের স্টিলের (একেএস) দৈনিক অক্সিজেন উৎপাদন ক্ষমতাও ২৫০ টনের কাছাকাছি। জুনে নতুন আরেকটি প্রাইভেট অক্সিজেন প্ল্যান্ট তৈরি করবে ফ্রেশ গ্রুপ। যেটি থেকে দৈনিক ৪০ টন অক্সিজেন পাওয়া যাবে। এর বাইরে আরেকটি প্রতিষ্ঠানও দৈনিক ৩০ টন অক্সিজেন তৈরি করবে। সম্পাদনা: সালেহ্ বিপ্লব




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]