• প্রচ্ছদ » » প্রবাসীদেরও ক্ষুধা লাগে তা কি কেউ অনুভব করেন?


প্রবাসীদেরও ক্ষুধা লাগে তা কি কেউ অনুভব করেন?

আমাদের নতুন সময় : 05/05/2021

পলাশ রহমান : এপ্রিল মাসে প্রবাসীরা ২০৬ কোটি ডলার বাংলাদেশে পাঠিয়েছে। মে মাসের প্রথম দুই দিনে পাঠিয়েছে ১৫ কোটি ৪০ লাখ ডলার। ফলে বাংলাদেশের বৈদেশিক মুদ্রার মজুত প্রথমবারের মতো ৪৫ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়েছে। যেকোনো বিবেচনায় এটা ভালো খবর। ভালো লাগার খবর। কিন্তু এই খবরের পাশাপাশি ওয়াশিংটনের গ্যালাপ জানিয়েছে, করোনার মহামারিতে বিশ্বে প্রতি দুজনে একজনের আয় কমেছে। কর্মহীন হয়েছে ৬৫ শতাংশ মানুষ। চাকরি হারানো বা আয় কমে যাওয়া এই মানুষগুলোর মধ্যে প্রবাসীরাও আছে, তা কী বাংলাদেশের কেউ জানে? খোঁজ রাখে বা জানার চেষ্টা করে? এই মহামারিতে প্রবাসীরা কেমন আছে, কী করছে, কী খাচ্ছে তা কী দেশের কেউ খবর নেওয়ার প্রয়োজন বোধ করে? আমাদের সরকার, দেশের মানুষগুলো, আত্মীয়স্বজন, পরিচতজনরা কেউ কী এই বাস্তবতা জানার, বোঝার চেষ্টা করেছে- এই বিশ^ সংকটের মধ্যে প্রবাসীরা কীভাবে দেশে টাকা পাঠাচ্ছে, কোথা থেকে পাঠাচ্ছে? প্রবাসীদেরও যে সুখ-দুঃখ আছে, তাদেরও যে ক্ষুধা লাগে তা কী কেউ অনুভব করে? আমাদের মিশনগুলো কী শুধুই প্রবাসীদের পাসপোর্ট নবায়ন করার জন্য? প্রবাসীদের প্রতি আর কোনো দায় কী তাদের আছে? আমার পরিচিত একজন প্রবাসী ইতালির মিলানোয় বাংলাদেশ মিশনে গিয়েছিল পাসপোর্ট নয়াবনের জন্য। এ্যাপয়েনমেন্ট ছাড়া যাওয়ার অপরাধে মিশন কর্তৃপক্ষ তাকে পুলিশ ডেকে ধরিয়ে দেয়। অথচ ওই ছেলে ৬ মাস চেষ্টা করেও মিশনের এ্যাপয়েনমেন্ট পায়নি। নবায়িত পাসপোর্টের অভাবে তার ইতালিয় ডকুমেন্ট বাতিলের উপক্রম হওয়ায় এই মহামারির মধ্যেও সে একগাদা টাকা খরচ করে ছুটে গিয়েছিল নিজ দেশের মিশনে। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]