• প্রচ্ছদ » » সভ্যভাবেও যে বিচ্ছেদ হওয়া যায়, বিল গেটস এবং মেলিন্ডা দেখালেন, আর বিচ্ছেদ মানেও শত্রæ হয়ে যাওয়া নয়


সভ্যভাবেও যে বিচ্ছেদ হওয়া যায়, বিল গেটস এবং মেলিন্ডা দেখালেন, আর বিচ্ছেদ মানেও শত্রæ হয়ে যাওয়া নয়

আমাদের নতুন সময় : 05/05/2021

অধ্যাপক ড. কামরুল হাসান মামুন : অনেকেই বিল গেটস আর মেলিন্ডার বিবাহবিচ্ছেদ হওয়ায় ভাবছেন, আহারে এরা নাজানি কতো কষ্টে আছে! ওদের জন্য আমাদের কতোই না ওয়াজ নসিহত। আরে ভাই নিজের চর্কায় তেল দেন। নিজের সংসারে সময় দেন। এরা হিপোক্রিসি জানে না। এরা সমাজ কি বলবে গো ভেবে চাপ নেয় না। আমাদের অনেকেরই সংসার টিকে আছে কেবল স্ত্রীর কোথাও যাওয়ার জায়গা নাই বলে। এতো কিছুর পরও আনভীরের স্ত্রী কি তাকে ছেড়ে চলে গেছে? নাকি চলে যেতে পারবে? বিবাহের বাহিরে এতো অনাচার সত্বেও বিয়ে টিকে আছে। এক সাথে থেকে একসাথে বুড়ো হওয়ার অর্থ বুঝেন?
একসঙ্গে বুড়ো হওয়া বুঝতে হলে বাউল আব্দুল করিমের ‘সখি তোরা প্রেম করিয়ো না’ শিরোনামে গানের দুটো লাইনের তর্জমা বুঝতে হবে। সেই গানে দুইটা লাইন আছে ‘কাম হইতে হয় প্রেমের উদয়, প্রেম হইলে কাম থাকেনা’! কত গভীরের কথা! একজন প্রাতিষ্ঠানিকভাবে প্রায় অশিক্ষিত মানুষ যা বুঝতে পেরেছে অনেক বড় বড় ডিগ্রি নিয়েও অনেকের এই বোধ আসে না। বিয়ে মানে একসাথে থেকে একসাথে বুড়ো হওয়ার কমিটমেন্ট। বিয়ে মানে কাম, উপার্জন, রান্না আর বাঁচার জন্য খাওয়া না। কামের বাইরেও আনন্দের আরো অনেক আনন্দের উপকরণ আছে। একসঙ্গে বৃষ্টি দেখা, একসঙ্গে হাত ধরাধরি করে জঙ্গলে জঙ্গলে ঘুরে পাখি, গাছ আর প্রাণি দেখা, একসঙ্গে একটা ছবি দেখা অথবা একসঙ্গে কোনো কথা না বলে ঘণ্টার পর ঘণ্টা কাটিয়ে দেওয়া। এসবের যখন ঘাটতি ঘটে তখন আর কোনো কম্পোপ্রাইজ নয়। কবরী এক সাক্ষাৎকরে বলেছিলো, একসঙ্গে বসে এক কাপ চা খাওয়ার মতো বন্ধু পাননি। আমরা সবাই একজীবন বাঁচি। এই একজীবনকে যে যেইভাবে পারে সুন্দর করে বাঁচার চেষ্টা করা উচিত। তবে সন্তান থাকলে বিচ্ছেদের আগে অনেকবার ভাবা উচিত। একেবারেই না মিললে সভ্যভাবেও যে বিচ্ছেদ হওয়া যায় গেটস এবং মেরিন্ডা সেটাই দেখালেন। বিচ্ছেদ মানে শত্রæ হয়ে যাওয়া নয়। এখন দুজনেই নতুন করে সুখী হতে চেষ্টা করবে। তাদের এই চেষ্টা অতি দ্রæত সফল হোক এই কামনা করি। লেখক : শিক্ষক, পদার্থবিজ্ঞান বিভাগ, ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]