• প্রচ্ছদ » » করোনা মহামারি : দরকার বিজ্ঞান এবং বিজ্ঞানীদের


করোনা মহামারি : দরকার বিজ্ঞান এবং বিজ্ঞানীদের

আমাদের নতুন সময় : 10/05/2021

বিপ্লব পাল : বিশ্ববিধাতার বাণী-এই প্যান্ডেমিক পারপেচুয়াল-মানে চলিতেই থাকিবে। তবে ভ্যাক্সিনেশন শেষ করতে পারলে কিছুটা ম্যারম্যারে ম্যানেজডÑআলাদিনের প্রদীপে বন্দী দৈত্যের মতন শীতঘুমে যাবে কিছুদিন। কিন্তু যেকোনো দিন নতুন মিউট্যান্ট আবার নতুন মরকের ডাক দেবে। বলা হবে, ওয়েভ ৩-৪। আসতেই থাকবে। কখনো বসন্তে কখনো আঘ্রানে। আমি খুব পজিটিভ লোক। এই কঠিন ভবিষ্যতেও আশার আলো দেখছি। লোকজন বাঁচতে মন্দির, মসজিদে ছুটছে না- সেই হাসপাতালই যে আশা সেটা বুঝছে। ওয়াজ না, গুরুদের ভাষণ না-বিজ্ঞানীরা কী বলছে, কী করলে করোনা থেকে বাঁচা যাবে, সেটা বোঝার চেষ্টা করছে। জনগণ বলিউড, শীতলা মনসা, বাবার দরগা, মাদুলি ছেড়ে একটু বিজ্ঞান কাজে লাগিয়ে বাঁচার চেষ্টা করছে, এটা বিরাট উন্নতি। আসলে কি জানেন, চাইলেই স্বাধীনাত্তোর ভারতে গান্ধী সুভাষ তাদের জন্ম হতো না। ব্রিটিশদের বাঁট ছিলো বলেই মহান নেতারা সবাই স্বাধীনতার আগে জন্মেছেন। সুতরাং সমাজের সামনে একটা ‘বড়সর’ থ্রেট না থাকলে, এই গলেপচে যাওয়া গণতন্ত্র- যেখানে মানুষ তার হিন্দুত্ব, ইসলামিতে সুড়সুরি দিয়ে ভোট পাওয়া সহজ ছিল-সেসব হবে না।
জনগণ ভোট দেবে তাকেই-যে অক্সিজেন দিতে পারবে। ভ্যাক্সিন দিতে পারবে। আর সেগুলো মন্দির মসজিদে পাওয়া যায় না। বিভ‚তির মাধ্যমে সাঁইবাবাও দিতে পারেন না। এই ক্রাইসিসেই ভারতে সঠিক রাজনীতি, নেতার জন্ম হবে। কারণ বর্তমান গণতন্ত্রে নেতা হওয়ার ফর্মুলা-জাতি, ধর্মে সুড়সুরি-আর কয়েকটা স্কিম নামিয়ে গরিবদের ক্যাশ গুঁষ। অক্সিজেন প্ল্যান্ট বানানো, ভ্যাক্সিন ৭০ শতাংশ লোককে দেওয়ার মতন প্রোডাকশন ক্যাপেবিলিটি- এসব মিত্র-আমি এসে গেছি-এবার গাছে উঠে লাফিয়ে পা ভাঙ টাইপের ঢাউস ডায়ালোগে হবে না। কারণ শত্রæর নাম পাকিস্তান না-করোনা। বোমমারা কমান্ডো নাটক কাজে আসবে না। দরকার বিজ্ঞান এবং বিজ্ঞানীদের। সবার ঘরেই আজ মৃত্যু। সবাই প্রশ্ন করতে শিখুক। কেন-কেন পৃথিবীতে ভারতেই এতো লোক মরছে? কেন হাসপাতালে বেড নেই? অক্সিজেন নেই? দেশে ভ্যাক্সিন নেই কেন? সবাই উত্তর খুঁজুক। অযোধ্যা, বারনাসী উত্তর পেয়ে গেছে। অনেক চিতা জ্বালিয়েছে তো! বাকিরাও পাবে। তবে প্রিয় আত্মীয় পরিজনের মৃত্যুর আগে পাবে না…। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]