• প্রচ্ছদ » প্রথম পাতা » [১]অঞ্চলভিত্তিক কঠোর লকডাউন এবং ভ্যারিয়েন্ট সার্ভিল্যান্স এখন জরুরি, বলছেন জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা [২]তাদের মতে, সঠিক মিটিগেশন মেজার নিলে করোনার তৃতীয় ঢেউ এলে সহনীয় পর্যায়ে রাখা সম্ভব হবে


[১]অঞ্চলভিত্তিক কঠোর লকডাউন এবং ভ্যারিয়েন্ট সার্ভিল্যান্স এখন জরুরি, বলছেন জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা [২]তাদের মতে, সঠিক মিটিগেশন মেজার নিলে করোনার তৃতীয় ঢেউ এলে সহনীয় পর্যায়ে রাখা সম্ভব হবে

আমাদের নতুন সময় : 12/06/2021

ভূঁইয়া আশিক রহমান: [৩] সীমান্তবর্তী অঞ্চলে সংক্রমণ হার এখন আশঙ্কাজনক। প্রতিদিন গড় সংক্রমণের সংখ্যাও বাড়ছে। করোনার আরেকটি ওয়েভের দিকে ধাবিত হওয়ার শঙ্কা প্রকাশ করে জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, জেলা-উপজেলা পর্যায়ে অক্সিজেন সরবরাহ দ্রুত বাড়ানো দরকার। [৪] প্রধানমন্ত্রীর চিকিৎসক অধ্যাপক ডা. এবিএম আবদুল্লাহ মনে করেন, সীমান্তবর্তী অঞ্চলের এলাকার লকডাউন আরও কঠোর করা দরকার। পরিবহন যেন অন্য কোনো জায়গা না যেতে কিংবা ঢুকতে না পারে। দ্রুত ভ্যাকসিনের ব্যবস্থা করতে হবে। না হলে সংক্রমণ উদ্বেগজনকভাবে বাড়বেই, ঠেকানো যাবে না। করোনা সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়লে উপজেলা- জেলা পর্যায়ে বর্তমান অবকাঠামো দিয়ে তা সামলানো যাবে না। কারণ এখন গ্রাম পর্যায় পর্যন্ত ছড়িয়ে যাচ্ছে করোনা। [৫] জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ও অনুজীববিজ্ঞানী ড. শোয়েব সাঈদ বলেন, সংক্রমণ বাড়লে ভেঙে পড়া স্বাস্থ্য ব্যবস্থা বিপন্ন আর দিশেহারা রোগীদের অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে এবং অপরিচ্ছন্ন ডিভাইসে বাধ্য হয়ে সেবা দিতে গিয়ে ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের মতো কোভিড পরবর্তী বিপদের মুখে পড়ার শঙ্কা আছে। [৬] জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ডা. লেলিন চৌধুরী বলেন, সংক্রমিত এলাকাগুলোতে শুধু লকডাউন কঠোর দিলেই হবে না, সঙ্গে টেস্টও করতে হবে। মানুষকে করোনা টেস্টের আওতায় আনার জন্য সর্বত্র মাইকিং করা দরকার। সম্পাদনা: শাহানুজ্জামান টিটু




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]