• প্রচ্ছদ » প্রথম পাতা » [১]করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত মানিকগঞ্জের দুগ্ধ খামারিরা [২]ক্রেতা নেই, দুর্গম এলাকায় দাম কমেছে প্রতি কেজিতে ১৫ থেকে ২০ টাকা


[১]করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত মানিকগঞ্জের দুগ্ধ খামারিরা [২]ক্রেতা নেই, দুর্গম এলাকায় দাম কমেছে প্রতি কেজিতে ১৫ থেকে ২০ টাকা

আমাদের নতুন সময় : 12/07/2021

সোহেল হোসেন: [৩] জেলা শহর ও আশপাশের এলাকায় প্রতিকেজি দুধ ৪০ থেকে ৫০ টাকায় বিক্রি হলেও জেলার দুর্গম অঞ্চলের বাজারে বিক্রি হচ্ছে ২৫ থেকে ৩০ টাকায়। পর্যাপ্ত দুধের উৎপাদন থাকলেও বাজারে দুধের দরদাম কম এবং খুচরা ও পাইকারি ক্রেতা না থাকায় দাম কমে গেছে।
[৪] জানা গেছে, জেলার ঘিওর, দৌলতপুর এবং হরিরামপুর উপজেলার দুর্গম এলাকার বাজারগুলিতে দুধের দাম খুবই কম। [৫] জেলার বিভিন্ন বাজার থেকে দুধ সংগ্রহ করে পাইকারি ব্যাপারিরা দুধ ক্রয় করে ঢাকাসহ বিভিন্ন এলাকায় সরবরাহ করে থাকে। কিন্তু করোনার কারণে যানবাহন, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও সামাজিক অনুষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। [৬] দৌলতপুর উপজেলার খামারি সোমেজ বলেন, আমি দুধ বিক্রি করে সংসার চালাই। এখন দুধ বিক্রি করে গরুর খাবারের খরচই ওঠে না, সংসারের খরচ তো বাদই দিলাম।
[৭] প্রাণিসম্পদ অফিসের তথ্যমতে, জেলায় ১ হাজার ১শ গাভীর খামার রয়েছে। গত অর্থ বছরে ১৫ কোটি ৭০ লাখ লিটার দুধ উৎপাদিত হয়েছে। আর জেলায় চাহিদা রয়েছে ১২ কোটি ৭০ লাখ লিটার দুধের। ৩ কোটি ৭৭ লাখ লিটার দুধ মানিকগঞ্জ থেকে ঢাকায় পাঠানো হয়। সম্পাদনা: মুরাদ হাসান, সালেহ্ বিপ্লব




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]