প্রকাশিত: Wed, Aug 23, 2023 11:51 PM
আপডেট: Sat, May 18, 2024 9:47 PM

[১]রওশন এরশাদের সঙ্গে কোনো দ্বন্দ্ব নেই, কিছু লোক ষড়যন্ত্র করছে: জি এম কাদের

সালেহ্ বিপ্লব: [২] তিন দিনের দিল্লি সফর শেষে বুধবার সন্ধ্যায় দেশে ফিরে হযরত শাহজালাল (রহ.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও সংসদে বিরোধীদলীয় উপনেতা জি এম কাদের। 

[৩] মঙ্গলবার রওশন এরশাদ নিজেকে পার্টির চেয়ারম্যান ঘোষণা করে বিবৃতি দেওয়া এবং পরে সে বিবৃতি তার নয় বলে দাবি করার প্রেক্ষিতে জি এম কাদের এ মন্তব্য করেন। 

[৪] তিনি বলেন, বেগম রওশন এরশাদ আমার ভাবী। সবচেয়ে বড়ো ভাইয়ের স্ত্রী। আমার বড় ভাইকে সব সময় নিজের বাবার মতো মনে করতাম। সেই হিসেবে বয়সে যাই হোক, ছোটোবেলা থেকেই ভাবীকে মায়ের মতো মনে করে এসেছি। ওনার সঙ্গে আমার কখনোই কোনো দ্বন্দ্ব ছিলো না। এখনও নেই। ওনার অসুস্থতার সুযোগ নিয়ে বিভিন্ন মানুষ বিভিন্ন কাগজপত্রে সই করাচ্ছে। ওনার থেকে বক্তব্য নেওয়া হচ্ছে। আমার জানামতে তিনি নিজের ইচ্ছায় এগুলো দিচ্ছেন না। এটা করার উদ্দেশ্য, জাতীয় পার্টিকে দুর্বল করা। 

[৫] তিনি বলেন, যারা মুখে বেশি একতার কথা বলে, তারাই আসলে এগুলো করছে। বিভিন্নভাবে উস্কে দিচ্ছে। দল যাতে দাঁড়াতে না পারে, দলের ইমেজ যাতে ক্ষুন্ন হয়, সে লক্ষ্যেই তারা এসব করছে। শুধু নেতাকর্মী নয়, সাধারণ মানুষের মধ্যেও দল সম্পর্কে বিভ্রান্তি সৃষ্টির অপচেষ্টা করছে। 

[৬] রওশন এরশাদ নিজেকে চেয়ারম্যান ঘোষণা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমরা বিশ^াস করি, উনি এটা করেন নাই। উনাকে দিয়ে যারা এটা করানোর চেষ্টা করেছে, তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। 

[৭] প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমি ভারত সরকারের আমন্ত্রণে সফরে গিয়েছিলাম। বেশ কজন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তির সঙ্গে আলোচনা হয়েছে। তবে কার কার সঙ্গে বা কী নিয়ে আলোচনা হয়েছে, বিস্তারিত বলতে পারবো না। ওনারা যদি প্রকাশ করতে চান তো করবেন, তবে তাদের সম্মতি ছ্ড়াা আমি কিছু বলতে পারবো না। এটুকু বলতে পারি, আমরা দ্বিপাক্ষিক বিষয়ে ফলপ্রসূ আলোচনা করেছি। ওনারা প্রত্যাশা করেছেন, ভবিষ্যতেও জাতীয় পার্টির সঙ্গে সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক থাকবে। 

[৮] তিনি বলেন, ওনারা বাংলাদেশে একটা ভালো নির্বাচন দেখতে চান। নির্বাচনের আগেপরে যেনো সহিংসতা না হয়। সাধারণ মানুষের জীবনে যাতে অনিশ্চিত কিছু না হয়, ওনারা সেটা প্রত্যাশা করেন। এখানে ওনাদের অনেক বিনিয়োগ আছে। ওনারা মনে করেন বাংলাদেশে শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের মধ্যদিয়ে স্থিতিশীলতা বজায় থাকলে তারা নিজেদের কাজগুলো ভালোভাবে করতে পারবেন। তাই প্রত্যাশা করেন যে, এমন একটা পরিবেশ সৃষ্টি হবে, যাতে নির্বাচন শান্তিপূর্ণ হয়। 

[৯] প্রশ্ন করা হয়, নির্বাচন সামনে রেখে রাজনৈতিক দলগুলোর যে মতবিরোধ, তাতে ভারতের মতামত কী? জবাবে জি এম কাদের বলেন, ভারত বলেছে, এটা বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ ব্যাপার। আমরা যাতে নিজেদের মধ্যে আলাপ-আলোচনা করে সুরাহা করি, তারা সেটাই চান। 

[১০] জাতীয় পার্টির উদ্দেশ্যে ভারতের প্রতিনিধিরা বলেছেন, আপনাদের দলের একটা গ্রহণযোগ্যতা আছে। আপনারা চেষ্টা করুন সবাইকে নিয়ে যাতে একটা ভালো নির্বাচন করা যায়। 

[১১] আগামী নির্বাচনে বর্তমান সংবিধান মোতাবেক অংশ নেবেন কি না, প্রশ্ন করা হয় জাপা চেয়ারম্যানকে। তিনি বলেন, আমি আগেই বলেছি, এ ব্যাপারে কথা বলার এখনো সময় আসেনি। কার সঙ্গে যাবো কি যাবো না, পরিস্থিতি দেখেশুনে আমরা সিদ্ধান্ত নেবো। আর নির্বাচন বর্জনের কথা আমরা কোনোদিনই বলিনি।  দলের নেতাকর্মীদের মতামত নিয়ে আমরা সিদ্ধান্ত নেবো। সম্পাদনা: ইকবাল খান