প্রকাশিত: Sun, May 12, 2024 12:09 PM
আপডেট: Sat, May 18, 2024 11:37 PM

[১] প্রবীণ রাজনীতিবিদ হায়দার আকবর খান রনো মারা গেছেন

সমর চক্রবর্তী: [২] বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির (সিপিবি) উপদেষ্টা ও প্রবীণ রাজনীতিবিদ এবং বীর মুক্তিযোদ্ধা হায়দার আকবর খান রনো মারা গেছেন। শুক্রবার দিবাগত রাত ২টা ৫ মিনিটে রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে শেষনিশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি।(ইন্নালিল্লাহে ওয়া ইন্না ইলাহি রাজেউন)।

[৩] সিপিবি জানায়, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির (সিপিবি) উপদেষ্টা হায়দার আকবর খান রনোর জানাজা সোমবার (১৩ মে) অনুষ্ঠিত হবে। জানানা শেষে বনানী কবরস্থানে বাবা-মায়ের কবরের পাশে তাকে দাফন করা হবে।

[৪] সিপিবি আরও জানায়, সোমবার সকাল ১০টায় সিপিবি অফিসে তার মরদেহ নেওয়া হবে। পরে সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য দুপুর ১২টায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে রাখা হবে মরদেহ। বাদ জোহর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে জানাজার পর বনানী কবরস্থানে তাকে দাফন করা হবে।

[৫] কর্মসূচির বিষয়ে সংগঠনটির পক্ষ থেকে জানানো হয়, ১৩ মে সারা দেশে পার্টি কার্যালয়ে কালো পতাকা উত্তোলন, দলীয় পতাকা অর্ধনমিত ও কমরেড হায়দার আকবর খান প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হবে।

[৬] তাঁর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জেএসডির সভাপতি আ স ম আবদুর রব ও সাধারণ সম্পাদক শহীদ উদ্দিন মাহমুদ স্বপনসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক,সামাজিক সংগঠন।

[৭] বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির (সিপিবি) প্রেসিডিয়াম এক বিবৃতিতে শোক প্রকাশ করে নেতারা বলেন, হায়দার আকবার খান রনোর মৃত্যুতে দেশ একজন দেশপ্রেমিক, আজীবন সংগ্রামী, দেশের মানুষের শোষণ মুক্তির সংগ্রামের প্রিয় মানুষকে হারালো।

[৮] শনিবার সন্ধানী জাতীয় চক্ষুদান সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ডা. মনিলাল আইচ লিটু স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়, হায়দার আকবর খান রনো  মৃত্যুর আগেই সন্ধানী আন্তর্জাতিক চক্ষুব্যাংকে তার চোখ দান করে যান।  চোখ থেকে কর্নিয়া নিয়ে দুইজন দৃষ্টিশক্তিহীনের চোখে আলো ফিরবে বলে জানিয়েছে সন্ধানী। 

[৯] মৃত্যুর সংবাদ পৌঁছানোর পরই সন্ধানী আন্তর্জাতিক চক্ষুব্যাংকে কর্তব্যরত প্রতিনিধিরা সকাল ৬টায় আকবর খান রনোর মরণোত্তর চোখের কর্নিয়াদ্বয় সংগ্রহ করেন। রোববার দেশের বিশিষ্ট কর্নিয়াল সার্জন ডা. সৈয়দ এ হাসান দু’জন অন্ধের চোখের দৃষ্টিশক্তি ফিরিয়ে দেওয়ার লক্ষ্যে সন্ধানী চক্ষু হাসপাতালে কর্নিয়া সংযোজন সম্পন্ন করবেন। 

[১০]  মার্ক্সবাদী তাত্ত্বিক হায়দার আকবর খান রনো পূর্ব পাকিস্তান ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। তিনি মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক ও নেতা। তিনি একাধিক বইয়ের লেখক।

[১১] ২০১০ সালে মতভিন্নতার কারণে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি ছেড়ে হায়দার আকবর খান সিপিবিতে যোগ দেন। ২০১২ সালে তাঁকে দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য করা হয়। এরপর তিনি সিপিবির উপদেষ্টা হন। তিনি  ১৯৪২ সালের ৩১ আগস্ট অবিভক্ত ভারতের কলকাতায় জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পৈতৃক নিবাস নড়াইলের বরাশুলা গ্রামে। 

[১২] তিনি যখন ১৯৬০ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিদ্যা বিভাগের ছাত্র ছিলেন, তখনই কমিউনিস্ট পার্টির কর্মকান্ডের সঙ্গে জড়িয়ে পড়েন।

[১৩] তিনি ১৯৬৩ থেকে ১৯৬৫সাল পর্যন্ত তিনি  ‘পূর্ব পাকিস্তান ছাত্র ইউনিয়ন’র সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ১৯৬৬ সালে তিনি সরাসরি শ্রমিক আন্দোলনে জড়িয়ে পড়েন।

[১৪] হায়দার আকবর খান রনো রাজনীতি, অর্থনীতি, দর্শন এমনকী সাহিত্য ও বিজ্ঞানের ওপরও অনেকগুলো বই লিখেছেন।

[১৫] তিনি ২০২২ সালে মর্যাদাপূর্ণ ‘বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার’ লাভ করেন। সম্পাদনা: সমর চক্রবর্তী