সম্পূর্ণ নিউজ
Md. Alal Hossain
1 month ago
বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তিতে ডোপ টেস্ট বাধ্যতামূলক হচ্ছে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
Md. Alal Hossain
অনলাইন ডেস্ক

সুজন কৈরী: দেশের যুব সমাজ ও মেধা টিকিয়ে ব্যাপকভাবে ডোপ টেস্ট চালুর কাজ চলছে জানিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছেন, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে একটি কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। আগে মাদকাসক্ত শনাক্ত করা হবে ও সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নেব। যেকোনো মূল্যে আমরা দেশকে মাদকমুক্ত করবো। রোববার রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে ‘মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার ও অবৈধ পাচার বিরোধী আন্তর্জাতিক দিবস’ উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের (ডিএনসি) উদ্যোগে এ আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণীর আয়োজন করা হয়। 

মন্ত্রী বলেন, আমরা ডোপ টেস্টের দিকে বিশেষ নজর দিচ্ছি। প্রত্যেককে ডোপ টেস্ট করার প্রকল্প হাতে নিয়েছি। যে যুবকই আক্রান্ত হবেন তাকে আমরা হাসপাতালে পাঠাবো। সরকারি চাকরি থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তির আগেও আমরা ডোপ টেস্ট করাবো।

তিনি বলেন, বিশ্বের উন্নত-অনুন্নত সব দেশই এ সমস্যায় আক্রান্ত। আমাদের দেশ মাদক উৎপাদনকারী দেশ না হয়েও ভৌগোলিকভাবে বিশ্বের প্রধান দুটি মাদক উৎপাদনকারী বলয়ে অবস্থিত হওয়ায় এটি মাদক চোরাচালানের রুট হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। এতে দেশের উল্লেখযোগ্য অংশ, বিশেষ করে যুব সমাজের একটি অংশ মেধা ও কর্মশক্তি হারিয়ে ফেলে পরিবার ও সমাজের বোঝা হয়ে দাঁড়াচ্ছে।

আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেন, পার্শ্ববর্তী দেশ থেকে ভয়ঙ্কর সব মাদক বাংলাদেশে ঢুকছে। ভারতের সঙ্গে প্রতিনিয়ত আমাদের যোগাযোগ রয়েছে। আমরা তাদের সব সময় অনুরোধ করছি। আমাদের অনুরোধে তারা ফেন্সিডিল কারখানা সরিয়ে নিয়েছে। যে দুই-একটি আছে তাও ধ্বংস করে দিচ্ছে। মিয়ানমার থেকে মাদক আসছে। এসব মাদক বন্ধ করতে আমরা সেখানকার সরকার ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে দফায় দফায় আলোচনা করেছি। তারা মাদক চোরাচালান বন্ধে অনেক কিছুই বলে, কিন্তু কিছুই করেন না। তাই আমরা আমাদের সীমান্তে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশকে (বিজিবি) শক্তিশালী করছি। আমাদের কোস্ট গার্ডকে শক্তিশালী করছি। মাদক যাতে দেশে না ঢুকতে পারে সেদিকে নজরদারি রাখছি। সীমান্ত এলাকায় সেন্সর বসানোর ব্যবস্থা করছি, যাতে কেউ এলে বা গেলে তার অস্তিত্ব আমরা টের পাই। 

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমাদের কাছে যে পরিসংখ্যান রয়েছে, বাংলাদেশে প্রায় ৭.৫ থেকে ৮ মিলিয়ন মাদকাসক্ত রয়েছে। মোট মাদকাসক্তের মধ্যে ৪৮ শতাংশ শিক্ষিত। মাদকাসক্তদের মধ্যে ৫৭ শতাংশ আবার যৌন অপরাধী। জেলখানায় যত মানুষ আছে এর বেশিরভাগই মাদক পাচারকারী কিংবা কারবারি। এটা বলার উদ্দেশ্য হচ্ছে আমরা কাউকে ছাড় দিচ্ছি না। সবচেয়ে বড় সমস্যা হচ্ছে মাদকসেবীদের ৮০ শতাংশই যুবক। সম্পাদনা: খালিদ আহমেদ

সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ
মিতু হত্যা: সাবেক এসপি বাবুল আক্তারের করা মামলা পুনঃতদন্তের নির্দেশ আদালতের
ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টের ১৬তম ‘কর্নেল অব দি রেজিমেন্ট’ হিসেবে অভিষিক্ত হলেন সেনাবাহিনী প্রধান
অনুমোদের পর করোনার ট্যাবলেট দেশের বাজারে, মূল্য ৭০ টাকা
[১]এসকে সিনহাসহ ১১ জনের মামলার রায় আজ
ফেনীতে একাত্তরের গণহত্যা ও বধ্যভূমির ওপর নির্মিত ‘গোলপোস্ট’ মঞ্চস্থ
সংকটে আবাসন খাত
বীর টাওয়ার,
১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা),
ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে )
সম্পাদক: নাসিমা খান মন্টি
চেয়ারম্যান: নাঈমুল ইসলাম খান
পরিচালক: মো. কামরুল হুদা
© ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | Amader Shomoy Media Group.