প্রকাশিত: Mon, Jan 23, 2023 3:12 PM
আপডেট: Wed, Feb 8, 2023 3:43 AM

বিপিএলে চট্টগ্রামের বিপক্ষে রংপুর রাইডার্সের দাপুটে জয়

রিয়াদ হাসান: মিরপুর শের- ই বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টসে হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে রংপুর রাইডার্স ৬ উইকেটে ১৭৯ রান সংগ্রহ করে। জবাবে ১২৪ রানের বেশি তুলতে পারেনি চট্টগ্রাম চ্যলেঞ্জার্স। ৫৫ রানের হার নিয়ে মাঠ ছেড়েছে দলটি। এ জয়ের বড় কৃতিত্বের দাবিদার শোয়েব মালিক। এই ক্রিকেটার এক প্রান্ত আগলে রেখে খেলেছেন ৭৫ রানের অপরাজিত এক ইনিংস।

মিরপুরে আগে ব্যাটিং করতে নেমে প্রথম ওভারেই উইকেট হারিয়ে বসে রংপুর। দলটির হয়ে ওপেনিং নামেন শেখ মাহেদী এবং নাঈম শেখ। প্রথম দুই বল থেকে দুটি সিঙ্গেল নেওয়ার পর তৃতীয় বলে সহজ এক ক্যাচ তুলে দেন মাহেদী। চট্টগ্রামের অধিনায়ক শুভাগত হোমের বল সোজাসুজি খেলতে গিয়ে ১ রান করে সাজঘরে ফেরেন মাহেদী। তিনে নামেন পারভেজ হোসেন ইমন। দুই পাশে দুই বাঁহাতি ব্যাটসম্যান থাকায় শুভাগত নিজে এবং আফিফকে দিয়ে বোলিং আক্রমণ চালিয়ে যান। কিন্তু পরের ওভারে শুভাগত হোমের বলে ব্যাট হাতে সংগ্রাম করা ইমন ফিরেন মাত্র ৬ রান করে। তৃতীয় উইকেট জুটিতে শোয়েব মালিক এবং নাঈম দলকে এগিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করেন। কিন্তু ২৯ বলে ৫টি চার ও ১টি ছয়ে মোট ৩৪ রান করে ভিজয়কান্তের বলে ক্যাচ দিয়ে মাঠ ছাড়েন নাঈম।

নাঈম ফেরার পর অবশ্য শোয়েব মালিকের ব্যাটে দারুণভাবে কামব্যাক করে রংপুর। প্রথম দশ ওভারে খুব বেশি রান তুলতে না পারা রংপুর শেষের ১০ ওভার থেকে শতরানের চেয়েও বেশি তোলে।

প্রথম ১০ ওভারে রংপুর করে ৬২, শেষ ১০ ওভার থেকে তোলে ১১৭ রান। এরমধ্যে শোয়েব এবং আজমতউল্লাহ ওমরজাই জুটি চতুর্থ উইকেটে ১০৫ রান যোগ করে রানের গতি বাড়িয়ে দেন। ওমরজাই ২৪ বলে ১ চার ও ৪ ছয়ে ৪২ রান করে আউট হন। তবে শোয়েব মালিক মাত্র ২৯ বলে ২টি চার ও ৫ ছয়ে ফিফটি স্পর্শ করে ফেলেন। শেষ পর্যন্ত ৪৫ বলে ৫টি করে চার ও ছয়ে ৭৫ রানে অপরাজিত থাকেন শোয়েব মালিক। চট্টগ্রামের পক্ষে মেহেদী হাসান রানা ৩টি ও শুভাগত হোম নেন ২ উইকেট।

লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে শুরুতে উইকেট হারাতে থাকে চট্টগ্রাম। প্রথম পাওয়ারপ্লেতে ৪৬ রানের মধ্যে ৩ উইকেট হারিয়ে বসে দলটি। এরপর অধিনায়ক শুভাগত হোমের ব্যাটিং নৈপুণ্যে ফিফটি করে লড়াইয়ের চেষ্টা চালান। তবে তার ৩১ বলে ৪টি করে চার-ছয়ে হাঁকানো ৫২ রান যথেষ্ট ছিল না। পরবর্তীতে জিয়াউর রহমান ১২ বলে ২৪ রান করে ব্যবধানটাই কেবল কমান মাত্র। চট্টগ্রামের পক্ষে ব্যাটিং করতে নামেননি আফিফ হোসেন। জ্বরের কারণে খেলা চলাকালীন হোটেল রুমে ফিরে যান আফিফ।

রংপুরের পক্ষে হারিস রউফ ৩ উইকেট শিকার করেন মাত্র ১৭ রানের বিনিময়ে। এছাড়া রাকিবুল হাসান ২ উইকেট শিকার করেন। এই জয়ে পয়েন্ট টেবিলের চতুর্থ স্থানে উঠে আসে একবারের চ্যাম্পিয়ন রংপুর রাইডার্স। সম্পাদনা: খালিদ আহমেদ